উয়েফা সুপার কাপের এ ম্যাচ দিয়েই ইউরোপের ক্লাব প্রতিযোগিতায় প্রথমবারের মতো এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে। অফসাইড নিয়ে নিখুঁত সিদ্ধান্ত দিতে এ প্রযুক্তিতে অপটিক্যাল ট্র্যাকিং পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে।

ইনফ্রারেড মার্কারের মাধ্যমে রিয়েল টাইমে মাঠে খেলোয়াড় ও বলের অবস্থান বোঝা যাবে। চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে আবুধাবিতে ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ এবং কাতারে গত ডিসেম্বরে আরব কাপে সেমি অটোমেটেড অফসাইড সিস্টেম পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করা হয়।

মাঠের বিশেষ ক্যামেরাগুলো ব্যবহার করে বল ও খেলোয়াড়ের সঠিক অবস্থান জানিয়ে দেবে এই প্রযুক্তি। মাঠে প্রতিটি খেলোয়াড়ের শরীরে ২৯টি জায়গা চিহ্নিত করে তাঁদের ত্রিমাত্রিক অবয়ব তৈরি করবে সেমি অটোমেটেড অফসাইড পদ্ধতি। চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের পর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি ত্রিমাত্রিক অ্যানিমেশনে ঘটনার মুহূর্তটা দেখাবে মাঠের বড় পর্দায়। এ প্রযুক্তিকে ফিফা ‘সেমি অটোমেটেড’ বলছে। কারণ শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ম্যাচ অফিশিয়ালরাই নেবেন।

উয়েফার প্রধান রেফারিং কর্মকর্তা রবার্তো রোসেত্তি বিবৃতিতে বলেছেন, ‘খেলার মানের উন্নয়ন করতে এবং রেফারিকে সাহায্য করতে উয়েফা নিত্যনতুন প্রযুক্তির খোঁজ করছে। এই উদ্ভাবনী প্রযুক্তি ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির (ভিএআর) দলকে খেলার গতি ব্যাহত না করে অফসাইড নিয়ে দ্রুত ও নিখুঁত সিদ্ধান্ত দিতে সাহায্য করবে।’ ২০২০ সাল থেকে এই প্রযুক্তির ১৮৮টি পরীক্ষামূলক ব্যবহার করে সুফল পেয়েছে উয়েফা। রোসেত্তি বলেছেন, ‘এই প্রযুক্তি এখন অফিশিয়াল ম্যাচের জন্য প্রস্তুত। চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রতিটি ভেন্যুতে তা বসানো হবে।’

default-image

ইংরেজ রেফারি মাইকেল অলিভার উয়েফা সুপার কাপের ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছেন। ২০১২ সাল থেকে আন্তর্জাতিক ম্যাচ ও উয়েফার ক্লাব প্রতিযোগিতায় ম্যাচ পরিচালনা করছেন অলিভার। ২০২০ ইউরোয় কোয়ার্টার ফাইনালসহ ৩টি ম্যাচ পরিচালনা করেছেন।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন