default-image

জর্জো কিয়েল্লিনি
২০০৪ সালে শুরু করে এ বছরে এসে জাতীয় দলের জার্সিতে অবসর নিয়েছেন ইতালিয়ান এই ডিফেন্ডার। জুভেন্টাসে দীর্ঘ সময় কাটিয়ে এখন খেলছেন যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগ সকারে।

বিশ্বের অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার বলা হয় তাঁকে। বিশ্বের বড় বড় ফরোয়ার্ডকে আটকে দিতে তাঁর জুড়ি নেই। মাঠের ব্যস্ততা থাকলেও পড়াশোনাতে কম যাননি। তুরিন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০১০ সালে অর্থনীতি ও বাণিজ্যে স্নাতক শেষ করেছেন কিয়েল্লিনি। তিনি এখন স্বপ্ন দেখেন স্নাতকোত্তর পাসেরও।

default-image

ভিনসেন্ট কোম্পানি
ম্যানচেস্টার সিটির জার্সিতে চারটি প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জিতেছেন বেলজিয়ামের এই সাবেক তারকা ফুটবলার। রক্ষণভাগ সামলানোর পাশাপাশি ব্যবসায় প্রশাসনেও নিজেকে যোগ্য করে তুলেছেন এই সেন্টারব্যাক।

অ্যালায়েন্স ম্যানচেস্টার বিজনেস স্কুল থেকে ব্যবসায় প্রশাসনে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর লন্ডন ইউনিভার্সিটি কলেজ থেকে একই বিষয়ে এমএ করেছেন তিনি। আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অর্থনীতির ওপর পড়াশোনাও চালিয়ে গেছেন তিনি।

করেছেন পিএইচডি। ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রিও দিয়েছে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অর্থনীতি নিয়ে গবেষণার জন্য।

default-image

ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ড
ইংলিশ ফুটবলের কিংবদন্তি তারকাই তিনি। ইংল্যান্ড তো বটেই, তাঁর সময়ে ইউরোপের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ড। শুনলে অবাক হতে পারেন যে মাত্র ১৭ বছর বয়সে এসেক্সের ব্রেন্টউড স্কুল থেকে জিসিএসই (স্কুল সমাপনী) শেষ করেন তিনি।

সেই পরীক্ষায় দুর্দান্ত ফল ছিল তাঁর। পড়াশোনার পাশাপাশি বুদ্ধিমত্তাতেও অসাধারণ তিনি। তাঁর ‘আইকিউ’ লেভেল ১৫০! পৃথিবীতে মাত্র ০.৫ ভাগ মানুষেরই বুদ্ধিমত্তা এই পর্যায়ের।

আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা
ভালো মানের একাডেমি থেকে একজন ফুটবলার অনেক কিছু নিয়েই উঠে আসেন। ফুটবল স্কিল তো থাকেই, সেই সঙ্গে যুক্ত হয় পড়াশোনাটাও। বার্সেলোনার লা মাসিয়া থেকে উঠে আসা আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাও পড়াশোনায় নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ রেখেছেন।

default-image

তাঁর সময়ে বিশ্বের অন্যতম সেরা সৃষ্টিশীল মিডফিল্ডার ইনিয়েস্তা। বর্তমানে জাপানের ভিসেল কোবেতে খেলা ইনিয়েস্তা ২০০৯ সাল থেকে একই সঙ্গে জীববিজ্ঞান ও ক্রীড়াবিজ্ঞানে পড়াশোনা করেছেন।

default-image

রোমেলু লুকাকু
২০১০ সাল থেকে বেলজিয়াম জাতীয় দলের নিয়মিত মুখ লুকাকু। মাসখানেক আগেই চেলসি থেকে ধারে তাঁর পুরোনো ক্লাব ইন্টার মিলানে ফিরেছেন তিনি। পড়াশোনাতেও সমান মন তাঁর। জনসংযোগ বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি আছে ২৯ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকারের। পাঁচটি ভাষায় অনর্গল কথাও বলতে পারেন তিনি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন