এক বিবৃতিতে ক্লাব জানিয়েছে, এখনই পালাবদলের সময় বলে মনে করছে মালিকপক্ষ। সেই পালাবদলের প্রথম ধাপে টুখেল গেলেন, তাঁর জায়গায় আসছেন কে, এটিই এখন স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের প্রধান কৌতূহল। ক্রীড়া সংবাদমাধ্যম ইএসপিএন সকার জানিয়েছে, এ মুহূর্তে তিনজনের দিকে চোখ চেলসির। প্রথমজন ব্রাইটনের বর্তমান কোচ গ্রাহাম পটার। বাকি দুজন কোচিংয়ের বাইরে থাকা মরিসিও পচেত্তিনো ও জিনেদিন জিদান।

default-image

তিনজনের মধ্যে পটারকে প্রথম পছন্দ প্রিমিয়ার লিগে তাঁর সাফল্যের কারণে। ৪৭ বছর বয়সী এই কোচ ২০১৯ থেকে ব্রাইটনের দায়িত্বে আছেন। গত বছর লিগে নবম হওয়ার পথে ৫১ পয়েন্ট জোগাড় করে ব্রাইটন, যা লিগ ইতিহাসে ক্লাবটির সর্বোচ্চ। ক্লাবটি ছন্দ ধরে রেখেছে চলতি মৌসুমেও। ৬ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলে অবস্থান চারে, চার জয়ের একটি আবার ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে। এই কীর্তিও তাঁর আগের কোনো ব্রাইটন কোচের নেই।

সূত্র বলছে, পটারকে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে নিয়ে আসতে ব্রাইটনের সঙ্গে কথা বলবে চেলসি কর্তৃপক্ষ।

পটারকে না পাওয়া গেলে পচেত্তিনো আর জিদানের দিকে এগোতে পারে চেলসি। পিএসজি থেকে বরখাস্ত হওয়ার পর এখনো চাকরিহীন আছেন পচেত্তিনো। আর্জেন্টাইন এই কোচ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কোচ হওয়ার দৌড়েও ছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত এরিক টেন হাগ ওল্ড ট্রাফোর্ডের দায়িত্ব পেয়ে যান।

পচেত্তিনোর মতো জিদানও এ মুহূর্তে ‘ফ্রি এজেন্ট’। রিয়াল মাদ্রিদকে টানা তিন চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতানো এই ফরাসি অবশ্য ইংলিশ লিগে যেতে রাজি হবেন কি না, স্পষ্ট নয়।

শেষ পর্যন্ত কোচ যিনিই হোন, সামনের ম্যাচেই তাঁকে ডাগআউটে পাওয়ার সম্ভাবনা কম। সে ক্ষেত্রে শনিবার লিগে ফুলহামের বিপক্ষে ম্যাচটি অন্তর্বর্তী দায়িত্বপ্রাপ্ত কাউকে দিয়েই সারতে হবে চেলসিকে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন