পাওলো দিবালা

চোট কাটিয়ে প্রায় এক মাস পর পাওলো দিবালা সিরি ‘আ’তে তুরিনোর বিপক্ষে এএস রোমার ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফিরেছেন। ৭০ মিনিটে বদলি হিসেবে নেমে তুরিনোর রক্ষণে ভালোই চাপ তৈরি করেছেন আর্জেন্টিনার ফরোয়ার্ড। পুরোপুরি সেরে উঠেছেন দিবালা, তবে এখন তাঁকে গতিটা ফিরে পেতে হবে।

আনহেল দি মারিয়া

অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে পাওয়া চোট কাটিয়ে উঠেছেন দি মারিয়া। গত সপ্তাহে জুভেন্টাসের হয়ে তিনটি ম্যাচও খেলেছেন। যদিও সব কটি ম্যাচে তিনি মাঠে নেমেছেন বদলি হিসেবে। তবে এরই মধ্যে ছন্দ ফিরে পেতে শুরু করেছেন আর্জেন্টাইন উইঙ্গার।

হুয়ান ফইথ

প্রায় এক মাস বাইরে থাকার পর দলে ফিরে ভিয়ারিয়ালের হয়ে কাল দ্বিতীয় ম্যাচ খেলেছেন হুয়ান ফইথ। কোপা দেল রের ম্যাচে সান্তা আমালিয়ার বিপক্ষে ৬০ মিনিট খেলেছেন। দলের ৯–০ ব্যবধানের জয়ে দুটি গোলে অ্যাসিস্ট করেছেন আর্জেন্টিনার ডিফেন্ডার।

ক্রিস্তিয়ান রোমেরো
টটেনহামের সর্বশেষ কয়েকটি ম্যাচে খেলতে পারেননি আর্জেন্টিনার ডিফেন্ডার ক্রিস্তিয়ান রোমেরো। মাংসপেশির চোটে ভুগছেন তিনি। চোট থেকে সেরে উঠেছেন, কিন্তু রোমেরো বিশ্বকাপে আসছেন গত দুই সপ্তাহে কোনো ম্যাচ না খেলার অভাব নিয়ে।

মার্কোস আকুনা
অনেক দিন ধরেই কুঁচকির চোটে ভুগছেন মার্কোস আকুনা। জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার পর আর্জেন্টিনার চিকিৎসক দল এটা পরীক্ষা করে দেখবে। তবে তাঁর খেলা নিয়ে কোনো সংশয় নেই।

লিয়ান্দ্রো পারেদেস
পেশির চোট কাটিয়ে দুই সপ্তাহ পর মাঠে ফেরার পর তিন দিনের মধ্যে দুটি ম্যাচ খেলেছেন পারেদেস। বিশ্বকাপে সতেজ হয়েই আসছেন তিনি।


নিকোলাস গনসালেস
গত ২২ অক্টোবরের পর তিনি কোনো ম্যাচ খেলেননি। ইন্টার মিলানের বিপক্ষে ম্যাচের শুরুর দিকেই চোট পেয়েছিলেন ফিওরেন্তিনার ফরোয়ার্ড। সেরে উঠেছেন গনসালেস। তবে বিশ্বকাপে আসছেন ছন্দহীনতাকে সঙ্গী করে।