প্রথমার্ধে বায়ার্নের জালে দুবার বল জড়ানোর সুযোগ নষ্ট করেন লেভানডফস্কি। ২১ মিনিটে তাঁর হেড অবিশ্বাস্যভাবে সেভ করেন বায়ার্নের গোলকিপার ও অধিনায়ক ম্যানুয়েল নয়্যার। পরে নয়্যারকে একা পেয়েও গোল দিতে পারেননি লেভার। এর আগে ম্যাচের ৯ মিনিটে গোলের দারুণ সুযোগ নষ্ট করেন বার্সা মিডফিল্ডার পেদ্রি। সব মিলিয়ে প্রথমার্ধেই তিনটি গোল পেতে পারত বার্সা। তা তো হয়ইনি; উল্টো ৫০ থেকে ৫৪—এই পাঁচ মিনিটের মধ্যে ২ গোল করে বসে বায়ার্ন। শেষ পর্যন্ত এই ২ গোলই গড়ে দিয়েছে ম্যাচের ভাগ্য।

default-image

বায়ার্নকে হারানোর এত বড় সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে না পেরে খেপেছেন জাভি হার্নান্দেজ, ‘আমার রাগ হচ্ছে। খুব রাগ হচ্ছে। আমি হারতে পছন্দ করি না। এই ম্যাচে হার আমাদের প্রাপ৵ও নয়। আমার মনে হয়, আমরাই ভালো খেলছি, বায়ার্নকে চাপে রেখেছি। কিন্তু এটাই চ্যাম্পিয়নস লিগ। আমাদের খেলার ধরন ঠিক ছিল, কিন্তু ফলাফল পক্ষে আসেনি। এই মাঠে জয় পাওয়ার বড় সুযোগ ছিল, কিন্তু আমাদের হেরেই ফিরতে হচ্ছে। সে জন্যই আমার রাগ হচ্ছে।’

এ মৌসুমে এই প্রথমবার হারের স্বাদ পেল জাভির দল। চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভিক্তোরিয়া প্লজেনের বিপক্ষে ৫-১ গোলে জয় পেয়েছিল বার্সেলোনা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন