জাকারিয়া পিন্টু ও প্রতাপ শংকরের নেতৃত্বে বাংলাদেশের পতাকা হাতে ম্যাচ-পূর্ব মাঠ প্রদক্ষিণের ছবিটা বাংলাদেশের ক্রীড়া ইতিহাসে অন্যতম শ্রেষ্ঠ ছবিই হয়ে আছে। ক্রীড়া সাংবাদিক ও পাক্ষিক ক্রীড়া জগতের সম্পাদক দুলাল মাহমুদের খেলার মাঠে মুক্তিযুদ্ধ বইয়ে রয়েছে সেই দিনের সচিত্র বর্ণনা।

২৫ জুলাই নদীয়া জেলা ক্রীড়া সমিতির সঙ্গে প্রথম ম্যাচের আগে তোলা হয় নানা ছবি, যা ইতিহাস তুলে ধরছে। মাঠের মাঝখানে দাঁড়িয়ে ছবির জন্য পোজ দেন লুৎফর রহমান, জাকারিয়া পিন্টু ও মুজিবুর রহমান। অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু ও সহ–অধিনায়ক প্রতাপ শংকর একসঙ্গে আছেন এক ছবিতে। গ্রুপ ছবিতে দাঁড়িয়ে নদীয়ার জেলা প্রশাসক, মুজিবুর রহমান, আশরাফ আলী চৌধুরী, এন এ চৌধুরী, মোহাম্মদ মহসীন, কোচ ননী বসাক, এম এ মতিন প্রমুখ আছেন। বাংলাদেশের পতাকার সামনে বাংলাদেশ ক্রীড়া সমিতির সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমানের দাঁড়িয়ে থাকার ছবিটাও মনকাড়া।

ম্যাচ-পূর্ব শুভেচ্ছা বিনিময়ে খেলোয়াড়দের সঙ্গে পরিচিতি পর্ব সারেন নদীয়ার জেলা প্রশাসক ডি কে ঘোষ। তখন তাঁর পাশে ছিলেন তরুণ সালাউদ্দিন, এনায়েত, প্রতাপ শংকর হাজরা, অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু, আশরাফ আলী চৌধুরী। স্বাধীন বাংলা দলের অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টুকে স্মারক উপহার দেন নদীয়া দলের অধিনায়ক।

default-image

সেই অবিস্মরণীয় দিনের ৫১ বছর পূর্তিতে দুকূল উপচানো আবেগ টের পাচ্ছেন তৎকালীন তরুণ প্রতাপ শংকর। চোখে-মুখে অদৃশ্য আবেগের প্লাবন নামে ম্যাচটির কথা তুলতেই। স্মৃতির সেলুলয়েডের ফিতায় সেসব দেখতে দেখতে প্রতাপ শংকর বলে চলেন, ‘ প্রথম ম্যাচটি খেলতে আমরা কলকাতা থেকে নদীয়া পৌঁছাই। সবাই শিহরিত ছিলাম তখন। কিন্তু সমস্যা হলো লেফট হাফে কে খেলবে, তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। কেউ চাইছিল নওশের খেলুক, কারও পছন্দ তসলিম। শেষে টসে ওঠে নওশেরের নাম। এসব আজকের দিনে খুব বেশি মনে পড়ে। আসলে স্বাধীন বাংলা দলের হয়ে পুরো ভ্রমণটাই কখনো ভোলার নয়। বিশেষ করে প্রথম ম্যাচটা বেশিই মনে দোলা দেয়।’

প্রতাপ শংকর স্মৃতিতে ডুব দেন, ‘সেদিন মাঠে গিয়ে দেখি মাঠে ভারতের পতাকা ওড়ানোর প্রস্তুতি চলছে। তার আগেই পিন্টু ভাই আর আমি গোপনে সিদ্ধান্ত নিই, ম্যাচের আগে বাংলাদেশের পতাকা হাতে মাঠে দৌড়াব আমরা। আমরা গোঁ ধরায় শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের পতাকা ওড়ানো হলো এবং তা করলেন পিন্টু ভাই। ২০-২৫ হাজার দর্শকে ঠাসা কৃষ্ণনগর স্টেডিয়ামে তখন ৯০ ভাগ দর্শকই দাঁড়ানো। প্রথমার্ধের পর আমি উঠে যাই এবং আমার জায়গায় শাহজাহান নামে। আমরা পিছিয়ে থেকে সম্ভবত ২-১ করি এবং শেষ পর্যন্ত ম্যাচের ফল ২-২ (স্বাধীন বাংলা দলের গোলদাতা শাহজাহান ও এনায়েত)।’

স্বাধীন বাংলা দলের অন্দরে ওই দিনটি তৈরি করেছিল দেশের প্রতি ভালোবাসার এক অবিশ্বাস্য মোহনা। কিন্তু দিনটি বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে আজও উপেক্ষিত। দিনটি নীরবে আসে, নীরবে চলে যায়। জাতীয় পর্যায়ে স্মরণ করা দূরে থাক, কোনো সংগঠনও দিনটি মনে করে না আলাদাভাবে।

default-image

আর তা দেখে ব্যথিত সেই ম্যাচের অন্যতম খেলোয়াড় শেখ আশরাফ আলী, যিনি বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় দলেরও একজন গর্বিত সদস্য। ১৯৭২ সালে আবাহনীতে নাম লিখিয়ে টানা খেলে যান আকাশি নীল জার্সিতে। সেই আশরাফ আলী স্মৃতির পুকুরে ডুব দিয়ে বলছিলেন, ‘যত দূর মনে পড়ে, আমরা সেদিন হাতে লাল বর্ডার দেওয়া সবুজ গেঞ্জি আর সবুজ শর্টস পরে নেমেছিলাম। আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলাম ভালো খেলব এবং খেলেছি। দেশের সম্মান আমরা রেখেছি।’

সব মিলিয়ে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে ঐতিহাসিক এক দিন ১৯৭১ সালের ২৫ জুলাই। দিনটির কথা পাঠ্যবইয়ে থাকা উচিত ছিল মনে করেন শেখ আশরাফ আলী। সেটি নেই বলে তাঁর অনেক আক্ষেপ। বলেন, ‘জীবদ্দশায় যদি দেখতে পেতাম যে স্বাধীন বাংলা দলের সেই ঐতিহাসিক প্রথম ম্যাচের গল্পটা পাঠ্যবইয়ে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, অনেক খুশি হতাম। কিন্তু তা আর হলো কই! কোনোভাবে স্মরণেই তো আসে না দিনটা। এসব দেখে দুঃখ লাগে, কষ্ট পাই।’

এই দুঃখটাই নিরন্তর কষ্ট দেয় প্রতাপ শংকর, জাকারিয়া পিন্টুদের। যাঁরা আজ থেকে ঠিক ৫১ বছর আগে ভিনদেশের মাটিতে অনন্য এক যাত্রার শুরুটা করেছিলেন।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন