জার্মান ক্লাবটির হয়ে আগেই অভিষেক হয়ে গেছে সেনেগালিজ তারকা মানের। গত জুনে লিভারপুল ছেড়ে বায়ার্নে যোগ দেওয়ার পর লাইপজিগের বিপক্ষে জার্মান সুপার কাপে গোল করেন।

গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত ম্যাচটি ছিল বায়ার্নের হয়ে মানের অভিষেক ম্যাচ। এবার বুন্দেসলিগায়ও অভিষেকে গোল করেই মানেই যেন বুঝিয়ে দিলেন, অ্যানফিল্ডে মোহাম্মদ সালাহ-রবার্তো ফিরমিনোদের ছেড়ে এলেও মিউনিখে শুরুর দিনগুলো সুখেই কাটছে তাঁর।

default-image

বায়ার্নও তাতে খুশিই হবে। প্রথমার্ধের ৫ থেকে ৪৩—এই ৩৮ মিনিটে পাঁচ গোল করা বায়ার্ন মানের কাছ থেকে সন্তোষজনক পারফরম্যান্সই পেয়েছে। সার্জ নাব্রির সঙ্গে আক্রমণভাগে খেলেছেন দাপটের সঙ্গে। নাব্রির ক্রস থেকেই পায়ের আলতো টোকায় গোল করেন মানে। তার আগে জশুয়া কিমিখ ও বেনজামিন পাভারের কাছ থেকে দুটি গোল পায় বায়ার্ন। ফ্রাঙ্কফুর্টের তুতার শট বায়ার্নের পোস্টে লেগে বাইরে চলে যায়।

তবে লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই টমাস মুলার এমন মিস করেছেন, যা বুন্দেসলিগার এ মৌসুমে সেরা গোল মিসগুলোর একটি হয়ে যেতে পারে। খুব কাছ থেকে ফ্রাঙ্কফুর্টের পোস্টে বল মারেন মুলার। ফিরতি বলেও গোল করতে পারেননি!

১৯ বছর বয়সী অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার জামাল মুসায়লা ও নাব্রিও প্রথমার্ধে লক্ষ্যভেদ করায় বিরতির আগেই জয় মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল বায়ার্নের। ৬৪ মিনিটে ফ্রাঙ্কফুর্টের হয়ে গোল করেন র‌্যানডাল কোলো মুয়ানি।

বুন্দেসলিগায় এবার টানা ১১তম শিরোপার খোঁজ করবে বায়ার্ন। সে লক্ষ্যে শুরুটা হলো প্রত্যাশামতোই এবং বিষয়টিকে স্বাভাবিক চোখেই দেখছেন বায়ার্ন কোচ ইউলিয়ান নাগলসমান, ‘টানা ১০টি জয়ের পর এমন কিছু স্বাভাবিক লাগে। প্রথমার্ধে আমরা দারুণ খেলেছি। তবে সব সময় তো আর এমন হবে না। পারফরম্যান্স নিয়ে আমাদের সন্তুষ্ট থাকা উচিত।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন