বিশ্বকাপ খেলতে বাধা না থাকলেও জরিমানা গুনতে হবে ইকুয়েডরকে। ‘মিথ্যা তথ্য সংবলিত নথি ব্যবহারের জন্য’ ২০২৬ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে ইকুয়েডরের ৩ পয়েন্ট কাটা হবে। এ ছাড়া দেশটিকে ১ লাখ সুইস ফ্রাঁ জরিমানা করা হয়েছে। ক্রীড়ার সর্বোচ্চ আদালত বা ‘দ্য কোর্ট অব আরবিট্রেশন ফর স্পোর্টস’ (সিএএস) জানিয়েছে, ইকুয়েডরের কর্তৃপক্ষ কাস্তিলোকে দেশটির নাগরিক হিসেবে স্বীকার করার ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ইকুয়েডরের হয়ে ৮ ম্যাচ খেলেছেন কাস্তিলো। এর মধ্যে ২টি ম্যাচ ছিল চিলির বিপক্ষে। কাস্তিলো ভুয়া পাসপোর্ট ও জন্মসনদ ব্যবহার করে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে খেলেছেন বলে ফিফার কাছে অভিযোগ করে চিলি। চিলির ফুটবল ফেডারেশনের অভিযোগ ছিল, কাস্তিলোর জন্ম ইকুয়েডরে নয়, ১৯৯৫ সালে কলম্বিয়ার টুমাকোয়। অন্যদিকে ইকুয়েডরের দাবি ছিল, ১৯৯৮ সাল ইকুয়েডরে জন্ম কাস্তিলোর।

চিলি প্রথমে তাদের অভিযোগ তুলে ধরে ফিফার কাছে। তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণের পর গত ১০ জুন ইকুয়েডর ফুটবল ফেডারেশনের বিরুদ্ধে তদন্ত বন্ধের সিদ্ধান্ত দেয় ফিফা। পরে ফিফার আপিল বিভাগে আবেদন করে চিলি। গত ১৬ সেপ্টেম্বর তাদের সেই আবেদনও খারিজ করে দেওয়া হয়। এরপর একই দাবি নিয়ে ক্রীড়ার সর্বোচ্চ আদালতে যায় চিলি। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় পেরুও। দক্ষিণ আমেরিকার বাছাইয়ে পেরু পঞ্চম হয়েছিল।

চতুর্থ হয়ে বিশ্বকাপে জায়গা করা ইকুয়েডর বাদ গেলে পরবর্তী স্থানে থাকা দল হিসেবে সুযোগ পাওয়ার আশা ছিল পেরুর।

তবে পেরু, চিলি দুই দেশের আবেদনই খারিজ করে দেয় ক্রীড়া আদালত। সিএসএ বলেছে, কাস্তিলোর ইকুয়েডরিয়ান পাসপোর্টের নথিতে কিছু তথ্য মিথ্যা থাকলেও পাসপোর্ট সঠিক ছিল। বিশ্বকাপে গ্রুপ ‘এ’তে  কাতারের পাশাপাশি সেনেগাল ও নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে খেলবে ইকুয়েডর।