ব্যালন ডি’অর পুরস্কার দিয়ে থাকে ফরাসি সাময়িকী ফ্রান্স ফুটবল। এ সাময়িকীর পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘সামাজিকভাবে চ্যাম্পিয়নদের সেরা কাজের স্বীকৃতি হবে সক্রেটিস পুরস্কার।’ পরিবেশ রক্ষা ও সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য কাজ করার পাশাপাশি সামাজিকভাবে যেকোনো ভালো কাজের সঙ্গে খেলোয়াড়দের জড়িত থাকাকে এ পুরস্কারের মাধ্যমে উদ্বুদ্ধ করতে চায় ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকী।

পুরস্কারের নামে সক্রেটিসকে বেছে নেওয়ার কারণও ব্যাখ্যা করেছে তারা। ২০১১ সালে ৫৭ বছর বয়সে মারা যান সক্রেটিস। ব্রাজিল সামরিক শাসনের অধীন থাকা অবস্থায় করিন্থিয়ান্সে ‘করিন্থিয়ান গণতন্ত্র’ নামে একটি ক্যাম্পেইন চালু করেছিলেন ১৯৮২ বিশ্বকাপ খেলা এই কিংবদন্তি।

default-image

এ প্রচারণার সঙ্গে জড়িত থাকা ফুটবলাররা বাঁধার সম্মুখীন হয়েছিলেন। তাঁদের রাজনৈতিকভাবে সম্পৃক্ত হতে নিষেধ করা হয়। কিন্তু খেলোয়াড়দের বেশির ভাগ জনপ্রিয় ও পরিচিত মুখ হওয়ায় কোনো বিপদ হয়নি। আর শুধু ক্লাবের মধ্যেই তাঁরা গণতন্ত্রের প্রচারণা চালাতেন।

পুরস্কারটি দেওয়ার জন্য এরই মধ্যে জুরি গঠন করা হয়েছে। সক্রেটিসের ছোট ভাই এবং ব্রাজিল ও পিএসজির সাবেক মিডফিল্ডার রাই, ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকীর প্রতিনিধি এবং মোনাকোর পিস অ্যান্ড স্পোর্ট অর্গানাইজেশনের প্রতিনিধিদের জুরি হিসেবে বাছাই করা হয়েছে।

ব্রাজিলের হয়ে ১৯৯৪ বিশ্বকাপজয়ী রাই এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘সক্রেটিস সব সময় বিশ্বাস করতেন, খেলাধুলার শক্তি দিয়ে সবাইকে একসূত্রে গেঁথে সমাজে সমতা আনা সম্ভব। খেলোয়াড় হিসেবে ব্রাজিলে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে তাঁর লড়াইয়ে এই চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছিল। মৃত্যুর ১১ বছর পরেও সাম্যবাদী পৃথিবী গড়ার চ্যাম্পিয়নদের একজন হিসেবে তাঁকে মনে রাখা হয়েছে।’

প্যারিসে আগামী ১৭ অক্টোবর ব্যালন ডি’অর পুরস্কার দেওয়া হবে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন