এরপর অনেকবারই টিকটক ও টুইটারে বলসোনারোর পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেছেন নেইমার। প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বদের নিয়ে ইউটিউবে একটি লাইভ করেছিলেন বলসোনারো।

সেখানে অংশ নিয়ে নেইমার বলেন, কাতার বিশ্বকাপে প্রথম গোল তিনি বলসোনারোকে উৎসর্গ করবেন। নির্বাচনে বলসোনারোর প্রার্থিতা নম্বর ২২। বিশ্বকাপে দুই হাত উঁচু করে ‘২২’ দেখাবেন বলে জানান। একপর্যায়ে নেইমার এমনও বলেন, তাঁর জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময়টিতে বলসোনারো পাশে ছিলেন।

ব্রাজিল ফুটবলে এই সময়ের জনপ্রিয় তারকা নেইমার এভাবে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে যাওয়ায় কিছুটা বিরক্তিও প্রকাশ করেন কোচ তিতে। বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েট প্রেসকে (এপি) দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, কাতার বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে বা পরে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করতে যাবেন না।

বলসোনারোর প্রতিদ্বন্দ্বী লুলা দা সিলভা নেইমারকে নিয়েও এর আগে কথা বলেছেন। তবে নেইমারের সমর্থনের বিষয়ে স্বার্থ আছে বলে অভিযোগ করেন তিনি, ‘নেইমারের ওপর আমার ক্ষোভ নেই। সে কাকে প্রেসিডেন্ট দেখতে চায়, সেটা বলতেই পারে। তবে সে আমাকে ভয় পাচ্ছে। কারণ, আমি প্রেসিডেন্ট হয়ে গেলে বলসোনারো যে ওকে আয়কর থেকে বাঁচিয়ে দিয়েছে, সেটা আমি খুঁজে পাব।’

রোববার ভোট গণনায় লুলা দা সিলভার সংখ্যাগরিষ্ঠতার খবর পেতেই ইনস্টাগ্রামে একটি পোস্ট করেন নেইমার। ব্রাজিলের পতাকা হাতে আকাশের দিকে আঙুল উঁচিয়ে তাকিয়ে থাকা ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘স্রষ্টা তোমার ইচ্ছে পূরণ করুক।’