রেড বুল অ্যারেনায় কাল রাতে জার্মান ক্লাব লাইপজিগের বিপক্ষে প্রাক-মৌসুম প্রীতি ম্যাচে ৫-০ গোলের জয় পেয়েছে লিভারপুল। ৮ মিনিটে মোহাম্মদ সালাহ এগিয়ে দেওয়ার পর প্রথমার্ধে এই এক গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় লিভারপুল। দ্বিতীয়ার্ধে স্রেফ নুনিয়েজের সামনে ছারখার হয় লাইপজিগ। রবার্তো ফিরমিনোর বদলি হিসেবে মাঠে নেমে ৪৮, ৫১, ৬৮ ও ৯০ মিনিটে গোল করেন এই উরুগুয়ে স্ট্রাইকার।

ইউনাইটেড ও ক্রিস্টালের বিপক্ষে সহজ কিছু সুযোগ নষ্ট করেছিলেন গত মৌসুমে ৩৪ গোল করা নুনিয়েজ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিভারপুল সমর্থকেরা তাঁকে ‘ফ্লপ’ আখ্যা দিয়ে বসেন। কিন্তু কাল রাতের পারফরম্যান্সের পর অনেকেই বলাবলি করছেন, মাত্র দু-একটি ম্যাচ দেখে কারও বিষয়ে চূড়ান্ত কথা বলে ফেলাটা বোকামি। আক্রমণভাগে একজন গোলশিকারি খেলাতে গত মাসে বেনফিকা থেকে নুনিয়েজকে উড়িয়ে আনে লিভারপুল।

দলবদল ফি হিসেবে শুরুতে নিশ্চিতভাবে ৮ কোটি ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৭৮৮ কোটি টাকা) খরচ হয় ক্লাবটির। পরে শর্তসাপেক্ষে আরও ২ কোটি ইউরো দিতে হতে পারে লিভারপুলকে। এর আগে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ডিফেন্ডার ভার্জিল ফন ডাইককে কিনতে ৭ কোটি ৫০ লাখ ইউরো খরচ করেছিল লিভারপুল, নুনিয়েজ আসার আগে সেটিই ছিল দলবদলে ক্লাবটি সর্বোচ্চ খরচের রেকর্ড।

৪৮ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে লিভারপুলের হয়ে গোলের খাতা খোলেন নুনিয়েজ। ম্যাচ শেষে লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ জানালেন, ওই গোলটা দিয়েই নুনিয়েজ যেন ‘প্যান্ডোরার বাক্স’ খুলে ফেললেন, ‘সালাহ দারউইনকে পেনাল্টি নিতে দিল। আর দারউইনও প্যান্ডোরার বাক্স খুলে ফেলল! রাতটা তার জন্য নিখুঁত ছিল।’

এখনকার খেলোয়াড়দের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানা মন্তব্য পড়ে প্রভাবিত হওয়ার সমালোচনাও করেন ক্লপ। নুনিয়েজ প্রথম দুই ম্যাচে ভালো করতে না পারায় ভক্তদের সমালোচনায় চাপে ছিল—এটার নেতিবাচক দিক বোঝাতেই সম্ভবত মন্তব্যটি করেন লিভারপুল কোচ, ‘আমরা অনেক সময় ভেবে নিই, প্রচুর টাকা দিয়ে খেলোয়াড় কিনলে সেই খেলোয়াড় চাপে থাকে না। এই প্রজন্মের খেলোয়াড়েরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক কিছু পড়ে, যা মোটেও বুদ্ধিমানের মতো কাজ নয়। তবে আলোচনা-সমালোচনা বন্ধ করতে এর চেয়ে ভালো কিছু আর হয় না।’

৬ আগস্ট ফুলহামের মুখোমুখি হয়ে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে নতুন মৌসুম শুরু করবে লিভারপুল।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন