বিশ্বকাপ তো শুরু হয়ে গেল। আপনি কোন দলের সমর্থক?

সিদ্দিকুর: আর্জেন্টিনা। আসলে আমার আর্জেন্টিনা-প্রীতির পেছনে একটা গল্প আছে।

সেই গল্পটা কী?

সিদ্দিকুর: তখন আমাদের বাড়িতে টেলিভিশন ছিল না। এলাকার একজনের বাড়িতে গিয়ে খেলা দেখতাম। ওই বাড়ির মালিক উঠানে একটা টেবিল পেতে তার ওপর টেলিভিশন বসিয়ে দিত। পাড়ার সব লোক একসঙ্গে উঠানে বসে খেলা দেখতাম। এলাকার বেশির ভাগ বাড়িতে আর্জেন্টিনার পতাকা উড়ত। এগুলো দেখতে দেখতে মনের অজান্তেই হয়তো আর্জেন্টিনার প্রতি ভালোবাসার জন্ম নেয়।

বিশ্বকাপ ফুটবল দেখার প্রথম স্মৃতি কি মনে পড়ে?

সিদ্দিকুর: অন্য খেলার মধ্যে ফুটবলটাই বেশি ভালোবাসি আমি। প্রথম খেলা দেখার স্মৃতি এখনো খুব ভালোভাবে মনে আছে আমার। ১৯৯৮ সালের ফ্রান্স বিশ্বকাপের ফাইনাল এখনো ভুলিনি। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ব্রাজিলকে ফাইনালে হারিয়ে দেয় জিনেদিন জিদানের ফ্রান্স। তখন মধ্যরাতে খেলা হতো। কিন্তু পুরো এলাকা যেন দিনের মতো জেগে থাকত। বিশ্বকাপের আনন্দে ভাসত সবাই।

আপনার চোখে প্রথম তারকা ফুটবলার কে?

সিদ্দিকুর: ব্রাজিলের রোনালদোর খেলা খুব ভালো লাগত। তখন ওই ব্রাজিল দলের একজন ফুটবলারকেই আমি চিনতে পারতাম। ওর ড্রিবলিং, গোল করার ক্ষমতা, উদ্‌যাপনের স্টাইল—সবকিছুই ভালো লাগত।

আপনি তো আর্জেন্টিনার সমর্থক। কী মনে হচ্ছে, কারা এবার চ্যাম্পিয়ন হতে পারে?

সিদ্দিকুর: এ ব্যাপারে আগে থেকে কিছু বলতে চাই না। তবে আমি চাইব, লিওনেল মেসি বা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর হাতেই এবারের বিশ্বকাপ উঠুক।

বিশ্বকাপ দেখা নিয়ে কোনো মজার স্মৃতি আছে?

সিদ্দিকুর: তেমন কোনো মজার স্মৃতি নেই। তবে বিশ্বকাপের সময় খেলা দেখতে বসলে আমার স্ত্রী মজার সব খাবারের আয়োজন করে। এটা খুব উপভোগ করি আমি।

এবারের বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার কে জিততে পারেন?

সিদ্দিকুর: আমার তো মনে হয় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

আর সেরা খেলোয়াড়?

সিদ্দিকুর: কেন যেন মনে হচ্ছে এবারের বিশ্বকাপটা হতে যাচ্ছে লিওনেল মেসির। মেসিই হতে পারেন এবারের সেরা খেলোয়াড়।