আরব উপদ্বীপের ইয়েমেনকেন্দ্রিক সামরিক শাখা অফিস কাতার বিশ্বকাপের সমালোচনা করেছে। আয়োজক দেশ কাতারের সমালোচনা করে আল-কায়েদার দেওয়া বিবৃতি নিজেদের প্রতিবেদনে প্রকাশ করেছে রয়টার্স। বিশ্বকাপের আয়োজন করে কাতার, ‘আরব উপদ্বীপে অসৎ, সমকামী লোকজন নিয়ে আসার পাশাপাশি দুর্নীতি ও নাস্তিকতার বীজ বপন করেছে’—বিবৃতিতে বলা হয়। এই বিশ্বকাপ ‘মুসলিম দেশগুলোর ওপর দখলদারি ও নিপীড়ন’ থেকে নজর সরিয়ে নিচ্ছে বলেও মনে করে আল-কায়েদার এই শাখা অফিস।

আল-কায়েদার শাখা অফিসের বিবৃতি প্রকাশের খবর কাল প্রথম জানায় শ্বেতাঙ্গদের শ্রেষ্ঠত্ববাদী ও জঙ্গি সংগঠনগুলোর অনলাইন কার্যক্রমের ওপর নজর রাখা সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ। তারা জানিয়েছে, বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘এই ইভেন্ট (বিশ্বকাপ) অনুসরণ করা এবং সেখানে উপস্থিত না হওয়ার জন্য আমরা মুসলিম ভাইদের সতর্ক করছি।’

কাতার বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে আজ থেকে। বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর ১০টায় স্বাগতিক কাতার-ইকুয়েডর ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে বিশ্বকাপ। কাতারের এই আয়োজনে শ্রমিকদের মানবাধিকার লঙ্ঘন নিয়ে বেশ আগে থেকেই সমালোচনা হচ্ছে। এ ছাড়া ‘এলজিবিটি’ জনগোষ্ঠী নিয়ে কাতারের অবস্থানেরও সমালোচনা হচ্ছে। তবে বিশ্বকাপের আয়োজকেরা জানিয়েছেন, যার অবস্থান যা–ই হোক না কেন, বিশ্বকাপে সবাইকে স্বাগত জানানো হবে।

৩০ লাখ মানুষের দেশ কাতারে প্রচুর প্রবাসী শ্রমিক কাজ করেন। দেশটির প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বিশ্বকাপে নিরাপত্তা দিতে প্রায় ৫০ হাজার প্রশিক্ষিত নিরাপত্তাকর্মী নিয়োজিত থাকবেন। কাতারের প্রশাসনের অধীন বিদেশি দেশগুলোর নিরাপত্তাকর্মীরাও দায়িত্ব পালন করবেন।