প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাইফ পাওয়ারটেকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার রুহুল আমিন। সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবটি পরিচালিত হয় সাইফ পাওয়ারটেক গ্রুপের অর্থায়নে।

প্রথম আলোকে তরফদার রুহুল আমিন বলেছেন, ‘ক্লাবের সঙ্গে এখন আমার তেমন সম্পৃক্ততা নেই। সাইফ পাওয়ারটেকের বোর্ড অব ডিরেক্টরদের সভায় ফুটবলে না থাকার সিদ্ধান্তটা হয়েছে।

আসলে ক্লাবের প্রতি যে সময় ব্যয় করা প্রয়োজন, সে সময় দিতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। ফুটবলের জাতীয় স্বার্থেও সেভাবে অবদান রাখা যাচ্ছে না। তাই ফুটবলীয় কার্যক্রম স্থগিত রাখা হবে।’

কত দিনের জন্য স্থগিত? এমন প্রশ্নে তরফদার রুহুল আমিন বলেন, ‘এটার কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই। বোর্ড পরিচালকেরা যদি মনে করেন ফেরা যায়, তখন আবার ফেরা যেতে পারে। তবে আগামী মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগ ও দ্বিতীয় বিভাগে আমাদের দল খেলছে না।’

default-image

সাইফ স্পোর্টিং ফুটবল থেকে গুটিয়ে নিলে দেশের ফুটবলের জন্যই ক্ষতিকর বলে মনে করছেন সবাই। প্রিমিয়ার লিগে খেলা দলগুলোর মধ্যে তারাই দেশের একমাত্র ক্লাব, যারা যুব দল গঠন করে খেলোয়াড় তৈরি করছে।

সাইফ স্পোর্টিং থেকে ক্লাব থেকে উঠে এসে বর্তমানে অনেকেই জাতীয় দলে খেলছেন। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রিয়াদুল হাসান রাফি, ইয়াছিন আরাফাত, ফয়সাল আহমেদ, রহমত মিয়া, মারাজ হোসেন। জাতীয় দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া সাইফেরও অধিনায়ক।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন