এই প্রশ্নের মোড়কে গভীরতর হলো, নেইমার যদি বড় চোটেই পড়েন, তাহলে তাঁকে কয় ম্যাচে পাবে না ব্রাজিল? বিশ্বকাপের বাকি পথে পাবে তো! এসব দুশ্চিন্তার মাঝে কাল সার্বিয়ার বিপক্ষে ২–০ গোলে জয়ের পর আশ্বাস দিয়েছেন ব্রাজিলের কোচ তিতে, নেইমারকে বিশ্বকাপে পাওয়া যাবে। আর ব্রাজিল ফরোয়ার্ড নিজেও ইনস্টাগ্রামে এক পোস্টে আস্থা রাখতে বলেছেন ভক্তদের।

ব্রাজিল দলের চিকিৎসক রদ্রিগো লাসমার বলেছেন, ‘ডান পায়ের গোড়ালিতে চোট পেয়েছে নেইমার। সার্বিয়ান খেলোয়াড়ের হাঁটুর আঘাতের প্রভাবে সরাসরি আঘাত লেগেছে। তাৎক্ষণিকভাবে বেঞ্চেই আমরা চিকিৎসা শুরু করেছি। ফিজিও কাজ করছেন। ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বিষয়টি বোঝা যাবে।’

অর্থাৎ নেইমারকে নিয়ে এখনই নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। কিন্তু যাঁকে নিয়ে গোটা ব্রাজিলসহ বিশ্বের তাবৎ ফুটবলপ্রেমীরাও ভাবনায় পড়েছেন, সেই নেইমারই আশস্ত করছেন তাঁর ভক্তদের।

ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে একটি ছবি পোস্ট করেছেন ব্রাজিল তারকা। ছবিটি বইয়ের একটি পাতার, যেখানে পর্তুগিজ ভাষায় ‘আস্থা রাখুন’ কথাটি ব্যাখ্যা করা হয়েছে, ‘এই বিশ্বাস রাখা যে সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে, এমনকি সেটি বিরুদ্ধস্রোতেও। এটা নিশ্চিত যে সেরাটার দেখা পাওয়া এখনো বাকি। সময় হলেই দেখা পাওয়া যাবে। বিশ্বাস বা আস্থা মানুষ দেখতে পায় না, কিন্তু অনুভব করতে পারে।’

সার্বিয়ার বিপক্ষে জয়ের পর সতীর্থদের শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইটও করেন নেইমার, ‘ম্যাচটা কঠিন ছিল। তবে জেতাটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। দলকে অভিনন্দন। প্রথম ধাপ পাড়ি দিলাম, এখনো ছয়টি (ম্যাচ) বাকি।’

সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে ৯ বার ফাউলের শিকার হন নেইমার। ৬৭ মিনিটে সার্বিয়ান ফুলব্যাক মিলেনকোভিচের কড়া ট্যাকলে নেইমারের ডান পায়ের অ্যাঙ্কেল মচকে যায়। এর প্রায় ১৩ মিনিট ব্রাজিল ফরোয়ার্ডকে মাঠ থেকে তুলে নেন তিতে। বেঞ্চে বসে কাঁদছিলেন নেইমার। দুশ্চিন্তাটা তখনই শুরু হয়, ব্রাজিল সমর্থকদের। তবে নেইমার নিজে এখন আশ্বস্ত করায় তাঁর চোট নিয়ে শঙ্কা কিছুটা হলেও কাটবে ব্রাজিল সমর্থকদের।