শনিবার ফিফা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আর্মব্যান্ডের মাধ্যমে বিশ্বকাপজুড়েই জাতিসংঘের সঙ্গে মিলে সামাজিক প্রচারণা করা হবে। প্রতিটি রাউন্ডের জন্য থাকছে আলাদা প্রচারণা। যেমন কোয়ার্টার ফাইনালে প্রচারণার থিম হবে ‘নো ডিসক্রিমিনেশন’ (বৈষম্য নয়)।

গত মাসেই ‘ওয়ান লাভ’ আর্মব্যান্ড পরার জন্য ফিফার কাছে অনুমতি চেয়েছিল ইংল্যান্ডের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। এফএর নির্বাহী মার্ক বুলিংহাম তখনই বলছিলেন, হাতে ‘ওয়ান লাভ’ আর্মব্যান্ড পরার জন্য প্রয়োজনে জরিমানাও দিতে রাজি ইংল্যান্ড।

কাতারের মানবাধিকার পরিস্থিতির প্রতিবাদে ডেনমার্ক প্রতিবাদের মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছিল তাদের ম্যাচের পোশাককে। সম্পূর্ণ কালো জার্সি ও প্যান্ট পরে বিশ্বকাপে মাঠে নামার কথা ছিল ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনদের। তবে ডেনমার্ককে সে অনুমতি দেয়নি ফিফা।

মধ্যপ্রাচ্যে হওয়া এ বিশ্বকাপ নিয়ে বিতর্ক অবশ্য নতুন কিছু নয়। আয়োজক হওয়ার পর থেকেই সমালোচনার মুখে পড়েছে দেশটি। এমনকি অনেক সাবেক ফুটবলারও বয়কট করেছেন এ বিশ্বকাপ। তবে সব বিতর্ককে পাশ কাটিয়ে আগামীকাল কাতার-ইকুয়েডর ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে বিশ্বকাপ।

বিশ্বকাপের আগে এক সংবাদ সম্মেলনে ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো ধুয়ে দিয়েছেন সমালোচকদের, ‘ইউরোপ আর পশ্চিমা বিশ্ব এখন অনেক কিছু শেখায়। গত ৩ হাজার বছর ইউরোপিয়ানরা বিশ্বজুড়ে যা করেছে, তাতে মানুষকে নীতিকথা শোনানোর আগে আগামী ৩ হাজার বছর তাদের ক্ষমা চাওয়া উচিত।’