এবার কি পারবেন মেসি? ২০২১-এ কোপা আমেরিকা জিতিয়েছেন দেশকে। দেশের জার্সি গায়ে মেসির প্রথম সাফল্য। সেটি তো হবেই, ১৯৯৩ সালের পর সেটিই যে আর্জেন্টিনার প্রথম আন্তর্জাতিক ট্রফি। আর্জেন্টাইন সমর্থকেরা আবার আশায় বুক বেঁধেছেন। ২০১৪ সালে না পাওয়ার বেদনা এবার নিশ্চয়ই ঘোচাবেন তিনি। ১৯৮৬ সালে ডিয়েগো ম্যারাডোনার পর মেসি হবেন আর্জেন্টিনার গৌরবের নায়ক।

বিশ্বকাপের আগ দিয়ে মেসির ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সও আশাবাদী করে তুলেছে সমর্থকদের। এমনকি মেসি ও আর্জেন্টিনার বর্তমান পারফরম্যান্স বিশ্বকাপের অন্যতম প্রতিপক্ষ পোল্যান্ড অধিনায়ক রবার্ট লেভানডফস্কিকেও বলতে বাধ্য করছে, কাতারে কেন আর্জেন্টিনা অন্যতম ফেবারিট।

লেভানডফস্কি এখন প্রস্তুত হচ্ছেন মেসির মুখোমুখি হওয়ার। বিশ্বকাপের ঠিক আগে ‘মার্কা’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি ব্যাখ্যা করেছেন বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা কেন ফেবারিট, ‘আমি মনে করি মেসি ও আর্জেন্টিনা এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম ফেবারিট। তারা ৩০টি ম্যাচ টানা জিতেছে। তাদের খেলোয়াড়েরা ছন্দে আছেন। দলের একটা নির্দিষ্ট পরিকল্পনাও দেখা যাচ্ছে। গোটা দলটাই সেই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।’

বিশ্বকাপে একই গ্রুপে আর্জেন্টিনা ও পোল্যান্ড। তাদের অপর দুই সঙ্গী মেক্সিকো ও সৌদি আরব। ১ ডিসেম্বর মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা ও পোল্যান্ড। লেভা আর মেসির লড়াই। বার্সেলোনার সাবেক তারকার সঙ্গে বর্তমান তারকার এই লড়াই। এই ম্যাচের জন্য মুখিয়ে লেভানডফস্কি। প্রবল লড়াইয়ের আগে পোলিশ তারকার কণ্ঠে মেসির প্রতি একরাশ শ্রদ্ধাই, ‘মেসির ব্যাপারে আর কী বলব! তাঁর তো দলের স্ট্রাইকারদের সঙ্গে অসাধারণ সংযোগ। সে জানে কখন, কোথায়, কাকে বল ঠেলতে হবে। এ ব্যাপারে সে বিশ্বের সেরা।’

বার্সেলোনায় ভবিষ্যতে মেসিকে সতীর্থ হিসেবে পাওয়ারও আশা করেন লেভানডফস্কি, ‘মেসির সঙ্গে খেলাটা আমার স্বপ্ন। এই স্বপ্ন পূরণ হবে কি না, বলতে পারব না। তবে স্ট্রাইকার হিসেবে সত্যিই মেসির সতীর্থ হওয়াটা আমার স্বপ্ন।’