এর আগে ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো বিশ্বকাপে অংশ নিতে যাওয়া ৩২ দলকে দিয়ে চিঠির মাধ্যমে বিতর্ক ভুলে ফুটবলে মনোযোগ দিতে বলেছিলেন। তবে এমন আহ্বানের পর তোপের মুখে পড়েন ফিফা সভাপতি। লরিস অবশ্য তাঁর এই আহ্বানকে খেলোয়াড়দের সম্মান করা উচিত বলে মন্তব্য করেন।

এর আগে এবারের বিশ্বকাপের নয়টি দল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাদের অধিনায়কেরা রংধনু–অঙ্কিত আর্মব্যান্ড পরে খেলতে নামবেন। যা বৈষম্যের বিরুদ্ধে ‘ওয়ান লাভ’–এর প্রচারের কাজ করবে। এই ৯ অধিনায়কের একজন লরিসও।

তবে লরিস এ–ও মনে করেন, কাতারের নিজস্ব সংস্কৃতির প্রতি সবার শ্রদ্ধা থাকা উচিত, ‘আমার ব্যক্তিগত মত আছে এবং তা ফরাসি ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতির (নোয়েল লা গ্রায়েত) সঙ্গে সংগতিপূর্ণ। আমরা যখন বিদেশি দর্শকদের নিজেদের দেশে স্বাগত জানাই, তখন আশা করি যে তারা আমাদের নিয়ম মেনে চলবে এবং আমাদের সংস্কৃতিকে শ্রদ্ধা করবে। আমি যখন কাতারে যাব, আমিও তা–ই করব। হয়তো আমি সেটার সঙ্গে একমত নই, তবে আমি সম্মান দেখাব।’

কাতারের সংস্কৃতি ও মূল্যবোধের ব্যাপারে শ্রদ্ধাশীল হলেও বিষয়গুলো নিয়ে চুপ করে থাকার সুযোগ নেই বলেও জানিয়েছেন লরিস। তবে লরিস মনে করেন এ ক্ষেত্রে খেলোয়াড়দের ওপর অনেক বেশি চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘খেলোয়াড়দের ওপর অনেক বেশি চাপ আছে। যদি চাপ দিতেই হয়, তবে সেটা ১০ বছর আগে দেওয়া উচিত ছিল। এখন অনেক দেরি হয়ে গেছে। চার বছর পরপর খেলোয়াড়দের সামনে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ আসে। খেলোয়াড়দের মনোযোগ এখন মাঠে রাখা উচিত। বাকিটা রাজনীতিবিদেরা দেখুক, আমরা তো খেলোয়াড়।’