‘মেসি বনাম রোনালদো: ওয়ান রাইভালরি, টু গোটস অ্যান্ড দ্য এরা দ্যাট রিমেড দ্য ওয়ার্ল্ড’স গেম’ নামের একটি নতুন বইয়ে এ কথা বলেছেন রোনালদো। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ‘দ্য সান’ এ তথ্য দিয়েছে। বইটি লিখেছেন ওয়ার্ল্ড স্ট্রিট জার্নালের দুই সাংবাদিক জোশুয়া রবিনসন ও জোনাথান ক্লেগ। বইটিতে রোনালদোর বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের প্রায় সব অম্লমধুর অভিজ্ঞতা উঠে এসেছে।

ইউনাইটেডে দ্বিতীয় অধ্যায়কে শুধু বিপর্যয় বলাই নয়, ক্লাবের অনেক কিছু নিয়ে অসন্তুষ্টি জানিয়েছেন রোনালদো। ট্রেনিং গ্রাউন্ড ক্যারিংটনের উন্নয়নে ক্লাব কর্তৃপক্ষ বিনিয়োগ না বাড়ানোয় ভীষণ চটেছেন ৩৭ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। তাঁর মনে হচ্ছে, ১৩ বছর আগে তিনি ক্লাবকে যেখানে রেখে গিয়েছিলেন, এখনো সেখানেই আছে। এ ছাড়া সতীর্থদের নিবেদন নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। বইটি নভেম্বরে বাজারে আসবে।

আগের মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৩৯ ম্যাচ খেলা রোনালদো এ মৌসুমে এখন পর্যন্ত মাঠে নামতে পেরেছেন মাত্র ১৩ বার। বেশির ভাগ সময়েই টেন হাগ খেলিয়েছেন বদলি হিসেবে। ব্যাপারটিকে অপমানজনক মনে হওয়ায় দুবার তো ম্যাচ শেষ হওয়ার আগেই স্টেডিয়াম ছেড়ে গিয়েছেন রোনালদো। এ নিয়েও জল গড়িয়েছে বহুদূর। শাস্তিও পেতে হয়েছে পাঁচবারের ব্যালন ডি’অরজয়ীকে।

তবে রোনালদো সবকিছুর জবাব গোলেই দিয়েছেন। ইউরোপা লিগে শেরিফ তিরাসপোলের বিপক্ষে পরশু রাতের ম্যাচে শুরুর একাদশে ছিলেন। ইউনাইটেডের ৩-০ গোলের জয়ে শেষটি ছিল তাঁর। এ গোলে টেন হাগকে যেন প্রচ্ছন্ন বার্তা দিতে চেয়েছেন, ‘এখনো ফুরিয়ে যাইনি।’

গত বছর গ্রীষ্মকালীন দলবদলের শেষ মুহূর্তে মহানাটকের জন্ম দেন রোনালদো। জুভেন্টাস থেকে ম্যানচেস্টার সিটিতে নাম লেখাতে চেয়ে সিদ্ধান্ত পাল্টে ফেলেন পর্তুগিজ মহাতারকা। এক যুগ পর ফেরেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে।