৪ ম্যাচে বাংলাদেশের পয়েন্ট ১০। সমান ম্যাচে নেপালের ৭। ৩ ম্যাচে ভারতের ৬। আজ মালদ্বীপকে হারালে ৫ আগস্ট ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হবে ভারত।

default-image

ফাইনালে খেলতে হলে আজ বাংলাদেশের বিপক্ষে নেপালের প্রয়োজন ছিল বড় জয়। শুরু থেকেই তারা আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলছিল। সাধারণত এমন ম্যাচে দাঁতে দাঁত কামড়ে রক্ষণাত্মক ফুটবল খেলে থাকে বাংলাদেশ।

তবে আজ রক্ষণাত্মক দেখা যায়নি বাংলাদেশকে। হালকা চোট থাকায় বিশ্রামে রাখা হয়েছিল আগের ম্যাচে মালদ্বীপের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করা মিরাজুল ইসলামকে। এ ছাড়া চোট থাকায় বিশ্রামে রাখা হয়েছিল নিয়মিত রাইটব্যাক শাহিন মিয়াকে।

৬৩ মিনিটে পিয়াসের গোলে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। প্রতি–আক্রমণ থেকে ঝড়ের গতিতে ডান প্রান্ত দিয়ে বক্সে ঢুকে কাটব্যাক করেন বদলি মিডফিল্ডার জনি, প্রথম স্পর্শেই প্লেসিংয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন পিয়াস।

এ নিয়ে টুর্নামেন্ট ৩ গোল হলো পিয়াসের। ৬৮ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে ১–১ করেন নেপালের নিরঞ্জন।

default-image

ম্যাচে গোল হয়েছে দুটি, লাল কার্ড হয়েছে দুটি। ৪৭ মিনিটে বল দখলের লড়াইকে কেন্দ্র করে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন দুই দলের খেলোয়াড়েরা। দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন বাংলাদেশের মিডফিল্ডার শহিদুল ইসলাম ও নেপালের স্ট্রাইকার দিপেশ গুরুং। বাকি সময়ে দুই দলই খেলেছে একজন খেলোয়াড় কম নিয়ে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন