default-image

অধ্যবসায়, আত্মনিবেদন–জাতীয় কঠিন কঠিন শব্দে যাওয়ার আগে খাবারদাবারের দিকে একবার চোখ বোলাতে পারেন। অন্তত স্প্যানিশ দুই সংবাদমাধ্যম মার্কা ও মুন্দো দেপোর্তিভো একটি বিশেষ খাবারের দিকেই চোখ ফেরাচ্ছে—সি-উইড।

রোনালদোর সাফল্যের পেছনে জিমে ঘাম ঝরানো, খাবারদাবার আর ঘুমে কঠোর নিয়মকানুনের কথা অনেক শোনা যায়। মেসিও ফিট থাকার জন্য পিৎজা-চকলেটজাতীয় সব খাবার বাদ দিয়েছেন আরও বছর দশেক আগে। বেনজেমার গল্পটাও অভিন্ন। তবে তিন তারকার কঠোর নিয়মকানুনে তৈরি, পুষ্টিগুণে ভরা খাদ্যতালিকায় সি-উইডের উপস্থিতিকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম।

স্পিরুলিনায় সমৃদ্ধ সি-উইডে প্রোটিনের ভাগ ৭০ শতাংশ। এ, বি১, বি২, সি, ডি, ই ও কে ভিটামিনও আছে প্রচুর পরিমাণে। ক্লোরেলার পরিমাণও আছে অনেক, যাতে ৬০ শতাংশ প্রোটিন আছে। এই ক্লোরেলা বয়স বাড়ার হার কমানোসহ আরও অনেক কাজে আসে বলে জানা যায়।

default-image

স্পেনের ফুটবলে অনেক তারকার ব্যক্তিগত শেফ হিসেবে কাজ করায় অভিজ্ঞ আলবার্তো মাস্ত্রোমাত্তেও সি-উইড খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। স্পিরুলিনা ও ক্লোরেলা নিয়ে তাঁর মত, ‘দারুণ পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ। কারণ, এটি খুব অল্প পরিমাণে খেলেও আপনি প্রচুর উদ্ভিজ্জ প্রোটিন পাবেন, প্রাণিজ প্রোটিনের চেয়ে এই ধরনের প্রোটিন শরীরের সঙ্গে আরও ভালোভাবে যায়।’ নিজের তৈরি প্রায় সব খাবারেই স্পিরুলিনা ও ক্লোরেলা ব্যবহার করতে পছন্দ করেন বলেও জানিয়েছেন মাস্ত্রোমাত্তেও।

সি-উইড ব্যবহারের প্রভাবেই কি না, মাঠে এখনো বেশ দাপুটে মেসি, রোনালদো ও বেনজেমা। বয়স ৩৭ বছর হয়ে গেলেও গত মৌসুমে রোনালদো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সর্বোচ্চ গোলদাতা ছিলেন। ৩৫ বছর বয়সী মেসি পিএসজিতে প্রথম মৌসুমে ধুঁকলেও ১১ গোল করার পাশাপাশি গোল করিয়েছেন ১৫টি! আর বেনজেমা তো গত মৌসুমে ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা মৌসুমই কাটিয়েছেন। ৪৬ ম্যাচে গোল করেছেন ৪৪টি।

বাংলাদেশেও কিন্তু এখন চাষ হচ্ছে সি-উইড। জামাল ভূঁইয়ারা একটু চেখে দেখবেন কি?

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন