তা, এতই যেহেতু গাড়ির প্রতি টান, স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন ওঠে, কোন তারকার গ্যারেজে কতগুলো বিলাসবহুল গাড়ি আছে? আর এসব বিলাসবহুল গাড়ি কিনতে খরচই-বা কত হয়েছে? কিংবা আরও গভীরেও যাওয়া যায়; সংবাদমাধ্যম এর আগে জানিয়েছিল, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর গ্যারেজে ২০টি গাড়ি আছে। এই এক কুড়ি গাড়ি কিনতে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড যে অর্থ খরচ করেছেন, তা তুলে আনতে মাঠে তাঁকে কতক্ষণ খেলতে হবে? সেই হিসাব অবশ্যই ক্লাবে তাঁর বার্ষিক পারিশ্রমিক বিচারে।

default-image

ইংল্যান্ডের অন্যতম বৃহৎ ড্রাইভিং স্কুল ‘বিল প্লান্ট ড্রাইভিং স্কুল’ এ হিসাব কষেছে। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের ক্লাবটিতে রোনালদোর বার্ষিক বেতন ২৪ দশমিক ৯৬ মিলিয়ন পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২৮১ কোটি ১৩ লাখ টাকা)। এবার তাঁর ২০টি গাড়ির মোট দাম জেনে নেওয়া যাক। প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ ৬৪ হাজার পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২০৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকা)।

বিল প্লান্ট ড্রাইভিং স্কুল জানিয়েছে, সব কটি গাড়ি কিনতে রোনালদো যে অর্থ খরচ করেছেন, সেটি মাঠে তাঁর ৩৩ ঘণ্টা ৪৭ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড খেলার পারিশ্রমিকের সমান। তবে একটি কথা বলে রাখা ভালো, রোনালদো তাঁর গ্যারেজের গাড়িগুলো বিভিন্ন সময় কিনেছেন। কোনো তারকাই সব কটি গাড়ি এক মৌসুমে বা একই বছরে কেনেননি।

তবু মাঠে ৩৪ ঘণ্টারও কম সময় কাটিয়ে এতগুলো বিলাসবহুল গাড়ির দামের সমপরিমাণ অর্থ উপার্জন করা সম্ভব, সেটি মেসি-রোনালদো এবং তাঁদের মতো তারকাদের আয়ের খতিয়ান দেখলেই শুধু বিশ্বাস করা সম্ভব। মেসি এ ক্ষেত্রে রোনালদোর চেয়েও এগিয়ে। ব্যাখ্যা করা যাক।

আর্জেন্টাইন তারকার গাড়িবহরের দাম রোনালদোর গাড়িবহরের চেয়ে বেশি। কিন্তু রোনালদোর চেয়ে মেসির বেতন যেহেতু বেশি, তাই হিসাব বলছে, গাড়িবহরের মোট দাম তুলে আনতে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর তুলনায় মেসিকে মাঠে তুলনামূলক কম সময় থাকতে হবে।

default-image

মেসির গাড়িবহরের মোট দাম ২ কোটি ৮১ লাখ ৬৯ হাজার পাউন্ড। এর মধ্যে ১ কোটি ৫০ লাখ পাউন্ড দামের বিলাসবহুল পাগানি জন্দা স্পোর্টস কারও আছে। মেসি পিএসজিতে ঠিক কী পরিমাণ পারিশ্রমিক পান, তার নিশ্চিত কোনো তথ্য নেই। তবে বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমের ধারণা, পিএসজিতে বছরে ৫ কোটি ২০ লাখ পাউন্ড পারিশ্রমিক মেসির। সে হিসাবে মেসির গাড়িবহরের সব কটি গাড়ির দাম মাঠে তাঁর ২৭ ঘণ্টা ১৭ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড খেলার পারিশ্রমিকের সমান।

নেইমারও গাড়িপ্রেমী। পিএসজির এই ব্রাজিলিয়ান তারকার গ্যারেজেও বেশ কিছু বিলাসবহুল গাড়ি আছে। এর মধ্যে ইতালির গাড়ি প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান মাসেরাতির বানানো বিরল একটি গাড়িও আছে। ফরাসি ক্লাবটিতে নেইমারের বার্ষিক পারিশ্রমিক প্রায় ৩ কোটি ১৩ লাখ পাউন্ড। নেইমারের সব কটি গাড়ির দাম মাঠে তাঁর ৮ ঘণ্টা ৫২ মিনিট ১৮ সেকেন্ড খেলার পারিশ্রমিকের সমান।

রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি তারকা করিম বেনজেমারও গাড়ির প্রতি বেশ মোহ। দুটি করে বুগাত্তি, রোলস রয়েস ও ল্যাম্বরগিনি আছে তাঁর বহরে। রিয়ালে বেনজেমার বার্ষিক পারিশ্রমিক ১ কোটি ৪৩ লাখ পাউন্ড প্রায়। আর তাঁর গাড়িবহরের মোট দাম ৭৮ লাখ ৯৭ হাজার ৯০০ পাউন্ড। ফরাসি এই ফরোয়ার্ড মাঠে ২৬ ঘণ্টা ৩৮ মিনিট ২২ সেকেন্ড খেলে যে পরিমাণ অর্থ উপার্জন করেন, সেটি তাঁর গাড়িবহরের মোট দামের সমান।

default-image

এসি মিলানের সুইডিশ তারকা জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ মাঠে ১২ ঘণ্টা ২৭ মিনিট ২২ সেকেন্ড খেলে যে পরিমাণ অর্থ উপার্জন করেন, সেটি তাঁর গাড়িবহরের মোট দামের সমান। মিলানে নতুন চুক্তির আগে ইব্রার বার্ষিক বেতন ছিল ৯১ লাখ পাউন্ড। তাঁর গাড়িবহরের মোট দাম ৪৫ লাখ ৫৫ হাজার পাউন্ড।

এ তো গেল বিলাসবহুল গাড়ির দামের হিসাব। বিল প্লান্ট ড্রাইভিং স্কুল অন্য এক হিসাবও কষেছে। সাধারণ লোকজন যেসব গাড়ি ব্যবহার করেন, সেসব ক্ষেত্রে হিসাবটা কেমন হবে? যেমন ধরুন, বিল প্লান্ট ড্রাইভিং স্কুলের হিসাবে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে জনপ্রিয় গাড়ি ভক্সহল করসা।

শুধু গত বছরেই দেশটিতে এই মডেলের ছয় হাজার গাড়ি বিক্রি হয়েছে। ভক্সহল করসাকে মোটামুটি ব্রিটিশদের পছন্দের গাড়ি বলা যায়। দাম ১৭ হাজার ৩৩০ পাউন্ড। এই গাড়ি কিনতে রিয়াল মাদ্রিদ ও বেলজিয়াম তারকা এডেন হ্যাজার্ডের মাঠে মাত্র ৩০ সেকেন্ড খেললেই চলবে। চোটপ্রবণ হ্যাজার্ড গত মৌসুমে রিয়ালের হয়ে মাঠে প্রতি মিনিটে ৩৭ হাজার পাউন্ডের বেশি পারিশ্রমিক পেয়েছেন।

default-image

গ্যারেথ বেলকে ছয় সেকেন্ড সময় বেশি খেলতে হবে। ওয়েলশ তারকা রিয়াল ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রের মেজর সকার লিগে নাম লিখিয়েছেন। বিল প্লান্ট ড্রাইভিং স্কুল হিসাবটি কষেছে রিয়ালে গত মৌসুমে বেলের পারিশ্রমিক বিচারে, যেখানে হ্যাজার্ডের তুলনায় প্রতি মিনিটে সাত হাজার পাউন্ড কম আয় করেছেন এই তারকা।

নেইমারের অবশ্য আরও বেশি সময় লাগবে। তাঁকে অন্তত ৪৮ সেকেন্ড মাঠে থাকতে হবে নতুন একটি করসা কিনতে। তবে পিএসজি তারকার গ্যারেজে সবচেয়ে সস্তা গাড়িটির (ভক্সওয়াগন ত্যুরেজ) দাম ইংল্যান্ডের সবচেয়ে জনপ্রিয় গাড়িটির দামের তুলনায় চার গুণ।

বিলাসবহুল গাড়ি বেলের পছন্দ হলেও সেভাবে ব্যবহার করতে পারেন না। এসব গাড়ির আসন এমনভাবে প্রস্তুত করা হয়, যা বেলের হ্যামস্ট্রিংয়ের জন্য সহায়ক নয়। এ কারণে বিলাসবহুল গাড়ি সেভাবে কেনা হয়নি বেলের। তবু তাঁর গাড়িবহরের মোট দাম প্রায় ৪ লাখ ৮৩ হাজার পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৫ কোটি ৪৪ লাখ টাকা প্রায়)।

রিয়ালে গত বছর বেলের যে পারিশ্রমিক, তা বিচারে মাত্র ১৬ মিনিট মাঠে থেকেই গাড়িবহরের দাম তুলে নিতে পারবেন এই তারকা। হ্যাজার্ডের লাগবে ১৭ মিনিট। তাঁর গাড়িবহরের মোট দাম ৬ লাখ ২২ হাজার পাউন্ড (প্রায় ৭ কোটি ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা)।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন