৩৪ মিনিটে প্রথমে গোল করে বার্সেলোনাকে এগিয়ে দেন দেম্বেলে। মাঝমাঠে সের্হিনিও দেস্তের কাছ থেকে বল নিয়ে রাইট উইং থেকে দর্শনীয় ড্রিবলে হুয়ান কুয়াদ্রাদো আর অ্যালেক্স সান্দ্রোকে পরাস্ত করে বাঁ পায়ের শটে গোলটা করেছেন দেম্বেলে।

পাঁচ মিনিট পরেই সমতায় ফেরে জুভেন্টাস। মাঝমাঠে মানুয়েল লোকাতেল্লি ও দেনিস জাকারিয়া নিজেদের মধ্যে পাসের আদান-প্রদান করে বল পাঠান বাঁ উইং থেকে উঠে যাওয়া কুয়াদ্রাদোকে। বক্সে আসা কিনকে উদ্দেশ্য করে মাটি কামড়ানো ক্রস পাঠান এই কলম্বিয়ান উইঙ্গার। এরিক গার্সিয়া, সের্হিনিও দেস্ত বা আন্দ্রেয়া ক্রিস্টেনসেনের সাধ্য ছিল না সে ক্রস আটকানোর। আলতো টোকায় দলকে সমতায় ফেরান কিন।

default-image

পরের মিনিটেই বার্সেলোনাকে আবারও এগিয়ে দেন দেম্বেলে। রক্ষণভাগ থেকে উড়ন্ত বল নিয়ন্ত্রণে এনে একে একে সান্দ্রো, কুয়াদ্রাদো আর লোকাতেল্লিকে পরাস্ত করে ড্রিবলের ক্যারিশমা দেখিয়ে পেয়ে যান নিজের দ্বিতীয় গোল। ৫১ মিনিটে ডানপ্রান্তে বল পেয়ে আলবাকে পরাস্ত করে বক্সে পাস দেন জুভেন্টাসের নতুন ফরোয়ার্ড আনহেল দি মারিয়া। সে পাস আটকাতে গিয়ে উলটো বিপদ বাড়ান এরিক গার্সিয়া, বল চলে যায় জাকারিয়ার কাছে, সেখান থেকে বক্সে থাকা লোকাতেল্লির পা হয়ে বল আবারও চলে যায় কিনের কাছে, সমতায় ফেরে জুভেন্টাস।

গোটা ম্যাচে দেম্বেলে যেমন ঝলক দেখিয়েছেন, তাতে আশাবাদী হতে পারেন বার্সেলোনা সমর্থকেরা। ওদিকে কিনের ফর্মও ভরসা দেবে জুভেন্টাসকে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন