নিজের অসহায়ত্বের কথা বলতে গিয়ে এই নাকাশিমহা আরও বলেন, ‘আমার থাকার জায়গা বদলানোর সুযোগ নেই। তাই যেভাবে আছি, সেটাকেই মেনে নিতে হবে এবং জাপানের ম্যাচের অপেক্ষায় থাকতে হবে। আমি এখানে আসি শুধু ঘুমাতে। সারা দিন বাইরে থাকি এবং শহরটাকে ঘুরে ঘুরে দেখি। আমি এখানে থাকতে চাই না।’

বেশির ভাগ অতিথি এই ভিলেজে আসার আগেই সবকিছু ঠিকঠাক না হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিল। সঙ্গে সারাক্ষণ নানা ধরনের নির্মাণাধীন কাজের ব্যস্ততা, আকাশছোঁয়া ভারী যন্ত্রপাতি এবং সেসবের শব্দও ভিলেজে থাকার জন্য সহায়ক নয়। এই ভিলেজে সব মিলিয়ে ১৮ শ তাঁবু খাটানো হয়েছে। যেখানে প্রতিটি ঘরে দুজন করে লোক থাকতে পারবেন।

কাতারে খেলা দেখতে এসে এই ভিলেজে ঠাঁই নিয়েছেন পেদ্রো ও ফাতিমা দম্পতি। তাঁদের বাস স্পেনে হলেও তাঁরা গলা ফাটাবেন মেক্সিকোর জন্য। গত এপ্রিলেই তাঁরা বিয়ে করেছেন এবং কাতারে খেলা দেখতে আসা মূলত তাঁদের হানিমুনেরই অংশ। নাকাশিমহার মতো ভিলেজ নিয়ে অভিযোগ আছে এই দম্পতিরও।

পেদ্রো বলেন, ‘এখানে এক রাত থাকার খরচ ১৭৫ পাউন্ড (২১ হাজার ৪৪২ টাকা)। তবে সত্যি বলতে যেমনটা প্রত্যাশা করেছিলাম, তেমনটা হয়নি। এটা ফিফা বিশ্বকাপ, এখানে কিছুটা মানসম্পন্ন বিষয়-আশয় আপনি আশা করতেই পারেন। এটা অনেকটা নিচু মানের হোস্টেলের মতো।’ ক্ষোভ প্রকাশ করে পেদ্রো আরও যোগ করে বলেন, ‘এটা অনেকটা গ্রিনহাউজের মতো। তাই ফ্লাইটের কারণে ক্লান্ত থাকার পরও সকাল ৯টার পর আর ঘুমাতে পারিনি।’

পাতলা প্লাস্টিকে তৈরি এই তাঁবুগুলোতে দুটি করে বেড রয়েছে। সঙ্গে একটি ফ্যান ও বাতি রয়েছে। আর নিচে রয়েছে পাতলা কার্পেট। ব্যবস্থাপনার সমস্যার কথা উল্লেখ করে ফাতিমা বিবিসিকে বলেন, ‘এখানে কোনো সংগঠন নেই। কেউ কিছু জানেন না। দোকানগুলো বন্ধ, খাবার পানি নেই। এমন কিছুর জন্য টাকা দিইনি।’