প্রতিপক্ষকে গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়ার কথা জানিয়েছেন নেদারল্যান্ডস কোচ লুই ফন গাল। প্রথম ম্যাচে শিষ্যদের খেলার মানে ঠিক সন্তুষ্ট হতে পারেননি। আর সাদিও মানেবিহীন আফ্রিকান দেশটির তুলনায় লাতিনের ইকুয়েডর বেশি শক্তিশালী বলেও বিশ্বাস ডাচ কোচের, ‘ইকুয়েডর খুবই কঠিন প্রতিপক্ষ। সেনেগালের চেয়েও গোছালো। নিজেরা গোল বেশি করে না। কিন্তু ওদের বিপক্ষে গোল করা কঠিন।’

জমাট রক্ষণ সমৃদ্ধ ইকুয়েডরের বিপক্ষে মাঝমাঠেই বেশি মনোযোগ দিতে চান ফন গাল। দলকে খেলাতে পারেন ৩-৫-২ ফর্মেশনে। ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং আর স্টিভেন বের্গহোইসকে মাঝে রেখে দুই পাশে ডেনজেল ডামফ্রিস ও ডেলি ব্লিন্ড, আর কিছুটা সামনে কোডি গাকপো। আক্রমণের মূল দায়িত্বে স্টিভেন বের্গভাইনের সঙ্গে ফেরার কথা মেম্ফিস ডিপাইয়ের। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট কাটিয়ে ফেরা ডিপাই সেনেগালের বিপক্ষে বদলি নেমে যোগ করা সময়ে গোল করেছিলেন। 

প্রস্তুত ইকুয়েডরের এনার ভ্যালেন্সিয়াও। ৩৩ বছর বয়সী ফেনারবেচে ফরোয়ার্ড কাতারের বিপক্ষে প্রথমার্ধে জোড়া গোলের পর দ্বিতীয়ার্ধে মাঠ ছেড়ে গিয়েছিলেন। ওই সময় তাঁর হাঁটুর ব্যথার কথা জানানো হয়েছিল। চার দিনের বিরতি পাওয়ায় আবারও শুরুর একাদশে নামতে প্রস্তুত ভ্যালেন্সিয়া। 

নেদারল্যান্ডস-ইকুয়েডর

রাত ১০টা, খলিফা স্টেডিয়াম, আল রাইয়ান

ফিফা র‌্যাঙ্কিং

নেদারল্যান্ডস , ইকুয়েডর ৪৪

মুখোমুখি

ম্যাচ

নেদারল্যান্ডস

ইকুয়েডর

ড্র