ফিফা ও উয়েফার আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাশিয়া আগেই ২০২২ কাতার বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব থেকে বাদ পড়েছিল। বাদ পড়েছে চলমান মেয়েদের ইউরো থেকেও। রুশ ক্লাবগুলোও ২০২২-২৩ চ্যাম্পিয়নস লিগসহ ইউরোপিয়ান কোনো ক্লাব টুর্নামেন্টে জায়গা পাবে না।

সিএএসের রায়ের দায়িত্বে থাকা বিশেষজ্ঞ প্যানেল রায়ের ব্যাখ্যায় জানিয়েছে, ‘যদিও ইউক্রেনে সামরিক অভিযানে রাশিয়ার ফুটবল দল, ক্লাব ও খেলোয়াড়দের কোনো ভূমিকা নেই, তবু ওই হামলার ভিত্তিতে ফিফা ও উয়েফা একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যেটির কারণে তাদের (রাশিয়ার ক্লাব, ফেডারেশন) এবং সর্বজনীনভাবে বললে রাশিয়ার ফুটবলের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এ জন্য প্যানেলের খুব খারাপ লাগছে। তবে বাকি বিশ্বের সব ফুটবল ইভেন্ট নিরাপদে ও নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে হওয়া নিশ্চিত করার প্রয়োজনের সামনে তাদের এই ক্ষতি ফিকে হয়ে যাচ্ছে।’

ফুটবলের বাইরে আরও অনেক খেলায় রাশিয়ার অ্যাথলেট ও দলগুলোকে ঘিরে এমন অনেক অভিযোগ সিএএসে জমা পড়ে আছে।

আগে থেকেই যে সিদ্ধান্তগুলো নিশ্চিত ছিল, সিএএসের সিদ্ধান্ত সেগুলো আরও পাকাপোক্ত হয়ে গেল। কী কী সিদ্ধান্ত? গত মৌসুমে রাশিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গ এবার চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বে খেলতে পারছে না। সময় ভিন্ন হলে আরেক রুশ দল সোচি জায়গা পেতে পারত চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বের বাছাইপর্বে, কিন্তু পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সেটিও হচ্ছে না।

রাশিয়াকে এবং এর ক্লাবগুলোকে টুর্নামেন্টে খেলার অনুমতি দিলে সে ক্ষেত্রে ইউক্রেন কিংবা ইউক্রেনকে সমর্থন দেওয়া দেশগুলোর জাতীয় দল ও ক্লাবগুলো টুর্নামেন্টে রাশিয়ার মাটিতে গিয়ে হয়তো ম্যাচ খেলতে রাজি হতো না।

এ তো গেল ফুটবল, রাশিয়ার অ্যাথলেট ও দলগুলোকে ঘিরে এমন আরও অনেক খেলার অনেক অভিযোগ সিএএসে জমা পড়ে আছে। অনেক খেলার নিয়ন্ত্রক সংস্থাই উয়েফা ও ফিফার মতো কারণ দেখিয়ে রাশিয়াকে তাদের টুর্নামেন্টে নিষিদ্ধ করেছে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন