প্রস্তুতি হিসেবে অনেকেই ঘরের পুরোনো টেলিভিশন বদলে নতুন টেলিভিশন কিনছেন। বাজারে তাই টেলিভিশন বিক্রির হার বেড়েছে। এ ছাড়া ফুটবল জোন কিংবা শহরের বড় স্ক্রিনেও খেলা দেখানো হবে।

আরব আমিরাতের টেলিভিশন ব্র্যান্ড নুন ডটকমের গ্রোথ ও ডিজিটাল স্ট্র্যাটেজি অফিসার নেহা চৌধুরী বলেছেন, লাখ লাখ ভোক্তা বিশ্বকাপ দেখার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তাঁরা কোথায় খেলা দেখবেন, সেটাও ঠিক করে ফেলেছেন। যে কারণে টেলিভিশনের চাহিদা ও জোগান দ্বিগুণের চেয়ে বেশি বেড়েছে। স্যামসাং, শাওমি, নিকাইয়ের মতো বড় বড় ব্র্যান্ড বিশ্বকাপের সময়ে এ সুযোগ নিচ্ছে।

রেডসার স্ট্র্যাটেজি কনসালট্যান্টের দেওয়া তথ্যমতে, টেলিভিশনে কাতার বিশ্বকাপ দেখবে প্রায় পাঁচ বিলিয়ন মানুষ। সব মিলিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের চেয়ে কাতার বিশ্বকাপে দর্শক বাড়বে ৪৩ শতাংশ।

রেডসার স্ট্র্যাটেজি কনসালট্যান্টের অংশীদার সন্দীপ গানিদিওয়ালা বলছেন, কোভিডের কারণে সমর্থকেরা খেলা দেখার অনেকগুলো ডিজিটাল মাধ্যমে অভ্যস্ত হয়ে গেছেন। ফুটবল-ভক্তদের মধ্যে নতুন অভ্যাস তৈরি হয়েছে। তাঁরা শুধু মাঠে ৯০ মিনিট খেলা নয়, খেলার পেছনের কাহিনিও জানতে চান।