হলান্ডের সতীর্থ অনেকেই খেলবেন বিশ্বকাপ, খেলবেন সমসাময়িক প্রতিদ্বন্দ্বীরাও। নরওয়ের হয়ে ২১ গোল করা হলান্ডকে দর্শক হিসেবেই দেখতে হবে বিশ্বকাপ। তাই বিশ্বকাপ না খেলার আফসোস রয়েই গেছে হলান্ডের।

স্কাই স্পোর্টসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হলান্ড বলেছেন, ‘ইশ্‌, আমি যদি বিশ্বকাপ খেলতে পারতাম! কিন্তু খেলতে পারছি না। এটাই বাস্তবতা। এই সময়টায় অবশ্য শারীরিক ও মানসিক প্রস্তুতিটা সেরে নেব।’

হলান্ড বিশ্বকাপ বাছাইয়ে নরওয়ের হয়ে খেলতে পেরেছিলেন ছয় ম্যাচ। গোল করেছেন ৫টি। নেশনস লিগেও করেছেন ৬ গোল। ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে হলান্ড আলো ছড়ালেও দল হিসেবে জ্বলে ওঠা হয়নি নরওয়ের।

তবে এবার না পারলেও হলান্ড চোখ রাখছেন ভবিষ্যতে। একদিন খেলতে চান ইউরোপ আর বিশ্বসেরার মঞ্চে, ‘আমরা সবচেয়ে বড় যে কাজটা করতে পারি, তা হলো কোনো বিশ্বকাপে বা ইউরোয় খেলতে পারি। জাতীয় দলের হয়ে এটাই আমার লক্ষ্য। জানি, এটা কঠিন। তবে আশা করি, ভবিষ্যতে একদিন আমি সেখানে খেলতে পারব।’

হলান্ডের চোখে এবারের বিশ্বকাপে ফেবারিট কারা? এমন প্রশ্নে অবশ্য ম্যানচেস্টার সিটির এই ফুটবলার কয়েকটি দলের নামই বলেছেন, ‘আমার মতে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, ফ্রান্স ও ইংল্যান্ড ফেবারিট। আমি একটা দলের নাম বলতে পারব না। কারণ, কয়েকটি দলই খুব শক্তিশালী।’