ড্রেসিংরুমে ফ্রান্সের স্ট্রাইকার কিলিয়ান এমবাপ্পেকে নিয়েও মজা করে আর্জেন্টিনা দল। দেশে ফেরার পরও এমবাপ্পেকে খোঁচানো থামাননি মার্তিনেজ। ছাদখোলা বাসে শোভাযাত্রার সময়ও এমবাপ্পেকে নিয়ে বিদ্রূপ করেন আর্জেন্টিনা দলের এই গোলকিপার।

লিওনেল স্কালোনির দল উদ্‌যাপন করতে গিয়ে সীমা লঙ্ঘন করেছে—এমন অভিযোগ করেছেন অনেকে। ইব্রাহিমোভিচও সেই অভিযোগকারীদের দলে, ‘মেসি সর্বকালের সেরা। আমি নিশ্চিত ছিলাম, সে বিশ্বকাপ জিততে যাচ্ছে। তবে আমি আর্জেন্টিনার অন্য ফুটবলারদের নিয়ে ভাবছি, কারণ, ওরা আর কোনো শিরোপা জিততে পারবে না। মেসি সবই জিতেছে, মানুষ তাকে মনে রাখবে। কিন্তু তার সতীর্থরা যারা খারাপ ব্যবহার করেছে, আমরা তাদের সম্মান জানাতে পারি না। ওরা আর বিশ্বকাপ জিততে পারবে না, ওদের উদ্‌যাপন সেদিকেই ইঙ্গিত করে।’ বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফাও আর্জেন্টিনা দলের ‘আক্রমণাত্মক আচরণ’ খতিয়ে দেখছে।

ফ্রান্সের হয়ে টানা দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জেতার খুব কাছে ছিলেন এমবাপ্পে। বিশ্বকাপ ফাইনালে হ্যাটট্রিক করেছিলেন এই ফরাসি ফুটবলার। সব মিলিয়ে ৮ গোল করে জিতেছিলেন গোল্ডেন বুট। ২৪ বছর বয়সেই বিশ্বকাপে এত এত অর্জনের মালিক এমবাপ্পে ভবিষ্যতেও বিশ্বকাপ জিতবেন বলে মনে করেন সাবেক পিএসজি তারকা, ‘আমার ধারণা, এমবাপ্পে ফ্রান্সের হয়ে আরও বিশ্বকাপ জিতবে। এ মুহূর্তে তরুণ ফুটবলারদের মধ্যে এমবাপ্পেই সেরা।’