বিজ্ঞাপন

পূর্ব পাকিস্তান দলে খেলেছেন ১৯৬৮ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত। ১৯৭২ সালে ভারতের নেহরু কাপে খেলা ঢাকা একাদশের সদস্য ছিলেন। অঘোষিত সেই বাংলাদেশ জাতীয় দলের সহকারী অধিনায়ক ছিলেন শামসুল বারী। ১৯৭৪ সালে জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে চ্যাম্পিয়ন ঢাকা জেলার হয়ে খেলেন। ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত ঢাকা জেলা দলের জার্সিতে খেলেছেন। জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে এই ৩ বছরই ঢাকা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল।

তাঁর জীবনের সবচেয়ে বড় ম্যাচ ১৯৭০ সালে। তৎকালীন পাকিস্তান জাতীয় দলের বিপক্ষে পূর্ব পাকিস্তানের হয়ে ঢাকায় প্রীতি ম্যাচে খেলেন। পাকিস্তান তখন বিশ্বসেরা দল। পূর্ব পাকিস্তান দল সে ম্যাচে এক গোলে হেরেছিল।

শামসুল বারীর মৃত্যুতে দেশের হকিতে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। হকি ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন, ‘আমরা একজন অভিভাবক হারালাম। দেশের হকি উন্নয়নে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।’ শোক প্রকাশের পাশাপাশি হকি ফেডারেশনের সহসভাপতি ইউসুফ আলী ক্ষোভও জানালেন, ‘বারী ভাই অনেক কাজ করেছেন হকির জন্য। কিন্তু জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পেলেন না। এই দুঃখ নিয়েই তাঁকে চলে যেতে হলো। শামসুল বারী ভাইয়ের মতো হকি-অন্তঃপ্রাণ সংগঠক আর আসবে না। তাঁর মৃত্যু দেশের হকিতে অপূরণীয় এক ক্ষতি।’

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন