বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গাজীপুর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল আদালতের পিপি এ বি এম আফফান আজ প্রথম আলোকে বলেন, জহির রায়হান হাইকোর্ট থেকে জামিনে ছিলেন। বুধবার তিনি নিম্ন আদালতে হাজিরা দিতে এলে আদালতের বিচারক তাঁর জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ সময় আদালতে মামলার বাদী ওই নারী উপস্থিত ছিলেন। গাজীপুর জেলা কারাগারের সুপার বজলুর রশিদ বলেন, ‘গতকাল অ্যাথলেট জহির রায়হানকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

জানা গেছে, ২০১৯ সালে এক নারী অ্যাথলেট জহিরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনেন। গাজীপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্র্যাইবুন্যালে করা অভিযোগে বাদী বলেন, ২০১৭ সালে সাভার বিকেএসপিতে বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস দলের প্রশিক্ষণ চলাকালে জহিরের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয় এবং প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে যান তাঁরা। এরপর তাঁকে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে সংসার করার প্রতিশ্রুতি দেন বলে বাদীর অভিযোগ।

default-image

২০১৯ সালের ৩ মে বিয়ে করার কথা প্রতিশ্রুতি দিয়ে জহির তাঁকে ধর্ষণ করেন বলে বাদী উল্লেখ করেন। সেই মামলায় গতকাল গাজীপুরের নারী ও শিশুবিষয়ক ট্র্যাইব্যুনালে হাজির হয়ে আত্মসমর্পণ করলে জামিন নামঞ্জুর করে জহিরকে হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

শুধু এই ঘটনা নয়, জহিরের বিরুদ্ধে আরও এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ওই নারী গত ২ সেপ্টেম্বর জহিরের কর্মস্থলে লিখিত অভিযোগ করেছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পরিচয় এবং পরের বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দুবার জহির ধর্ষণ করেন বলে ওই নারীর অভিযোগ।

default-image

বিকেএসপিতে গত ২০ নভেম্বর শুরু হওয়া অ্যাথলেটদের আবাসিক ক্যাম্পে ছিলেন জহির। সেই ক্যাম্প থেকে হঠাৎ গতকাল নিরুদ্দেশ তিনি। অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন বলছে, জহির কোথায় আছেন, তা জানে না তারা। যোগাযোগ করা হলে আজ বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রকিব বলেন, ‘আজ সকালে বিকেএসপি থেকে জাতীয় দলের কোচ ফৌজিয়া হুদা জুঁই লিখিতভাবে আমাদের জানিয়েছে, জহির বুধবার থেকে ক্যাম্পে নেই। কিছু না জানিয়ে সে চলে গেছে।’

যদি সেটাই হয়, থানায় ডায়েরি করেছেন কি না, জানতে চাইলে রকিবের কথা, ‘আমরা সেটা করিনি।’ কেন করেননি প্রশ্ন করলে এবার তাঁর উত্তর, ‘শুনেছি, সে গ্রেপ্তার হয়েছে। চেষ্টা করছি, আসল খবরটা জানতে।’ জহিরের ব্যাপার এখন কী সিদ্ধান্ত হবে, জানতে চাইলে রকিবের কথা, ‘আমরা ফেডারেশনের জরুরি সভা ডেকেছি। সেখানেই যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নেব।’

প্রশ্ন আসছে, ২০১৯ সালে জহিরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা হলেও তাঁকে টোকিও অলিম্পিকে কেন পাঠানো হলো? ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের দাবি, ‘মামলার বিষয়টা আমরা জানতাম না। আমাদের কেউ কিছু বলেনি।’

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন