বিজ্ঞাপন
default-image

লুজানের ওয়ার্ল্ড আর্চারি এক্সিলেন্স সেন্টারে প্রথম সেট থেকেই পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। প্রথম সেটে বাংলাদেশের দুই তিরন্দাজ মেরেছেন যথাক্রমে ৭, ৭, ৮ ও ৮ (৩০ পয়েন্ট)। নেদারল্যান্ডসের স্কোর ৯, ১০, ৮, ৯ (৩৬ পয়েন্ট)। দ্বিতীয় সেটে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টায় কিছুটা সফল হয়েছে বাংলাদেশ। এই সেটে দুই দলই পয়েন্ট ভাগাভাগি করেছে। দুই দলই পেয়েছে সমান ৩৫ পয়েন্ট। তৃতীয় সেটে নেদারল্যান্ডসের দুই তিরন্দাজ পেয়েছেন ৩৭ পয়েন্ট (১০, ৮, ১০, ৯)। রোমান ও দিয়ার পয়েন্ট ৩৪ পয়েন্ট (৮, ৮, ৯, ৯)।

ফাইনালের আগে লুজান থেকে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীব উদ্দীন প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ‘আমি ওদের ওপর কোনো চাপ দিতে চাই না, ওরা নির্ভার খেলুক। নিজেদের খেলাটা উপভোগ করুক।’ কিন্তু নির্ভার খেলতে পারেননি রোমান ও দিয়া। বড় মঞ্চের চাপটা যে নিতে পারেননি, টেলিভিশনের পর্দায় তা বোঝা যাচ্ছিল।

default-image

ফাইনালে হেরেও খুশি দিয়া। রুপার পদক গলায় ঝুলিয়ে বলছিলেন, ‘আমাদের সমর্থন দেওয়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। আসলে বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চে ভালো কিছু করার জন্য অভিজ্ঞতা দরকার। কিন্তু এমন পর্যায়ে আমি একেবারে নতুন। তবুও যা অজর্ন করেছি তাতেই আলহামদিল্লাহ। আমি অনেক খুশি।’

অবশ্য ফাইনালে স্বপ্ন পূরণ না হলেও বাংলাদেশের তিরন্দাজদের এ অর্জন অনেক বড়। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে রুপা জয় করেই রোমান ও দিয়া গড়েছেন ইতিহাস।

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন