আর্মি স্টেডিয়ামে নেপালের বিপক্ষে ‘রাগবি সেভেনস’ (সাত খেলোয়াড় নিয়ে গড়া দুই দলের ম্যাচ) ম্যাচে খেলতে গিয়ে হালকা চোট পেয়েছেন বুকে। চোটের জায়গায় বরফ লাগাতে লাগাতে নাদিম বলছিলেন, ‘এমন একটা সময় আসবে, যখন ফুটবলের চেয়েও এ দেশে বেশি জনপ্রিয় হবে রাগবি।’

বাংলাদেশে সব মিলিয়ে রাগবি ক্লাব আছে ১৬টি। বিভিন্ন টুর্নামেন্টে নিয়মিত রাগবি খেলে ৩৫০ জন । বছরজুড়েই কোনো না কোনো টুর্নামেন্টের আয়োজন করে রাগবি ফেডারেশন ইউনিয়ন। বর্তমান জাতীয় দলের সব খেলোয়াড় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর। বাংলাদেশ নৌবাহিনীও রাগবি দল গড়ার পরিকল্পনা করেছে। এ ছাড়া বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের আছে রাগবি দল। কিন্তু আবাহনী, মোহামেডান, বসুন্ধরা কিংসের মতো দেশের প্রতিষ্ঠিত ক্লাবগুলোকে রাগবিতে দেখতে চান নাদিম, ‌‘এসব দল রাগবিতে এলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়বে। ভালো খেলোয়াড় বের হবে। রাগবিতে পেশাদারির ছোঁয়া লাগবে। তখন শুধু সার্ভিসেস দলগুলো নয়, সিভিলিয়ান থেকেও খেলোয়াড় আসবে।’

default-image

বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা ২০১৫ সাল থেকে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে খেলছেন। এরই মধ্যে ভারত, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর, কাতারে এশিয়ান রাগবি সিরিজ খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু রাগবির বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন দেখেন নাদিম, ‌‘এসব প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হলে এশিয়া রাগবি সিরিজ ওয়ানে খেলার সুযোগ পাব আমরা। সেখান থেকে সেরা দুটি দল সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পায়। যদি বিদেশি কোচ, ট্রেনার, ফিজিশিয়ান দিয়ে একটু ভালোভাবে চেষ্টা করে ফেডারেশন, তাহলে আমরাও বিশ্বকাপে খেলতে পারব।’

ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন ছিল নাদিমের। কিন্তু ২০১৩ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার পর রাগবি খেলা শুরু করেন। নিউজিল্যান্ডের কোচ এসে নাদিমের হৃদয়ে তৈরি করে দিয়েছেন রাগবির প্রতি ভালোবাসা, ‌ ‘আগে আমি ফুটবল খেলতাম। কিন্তু এখন এলাকায় গিয়ে ফুটবল খেলতেও ভালো লাগে না। বাঁশ কেটে রাগবির গোলবার বানাই। যতটুকু সময় পাই রাগবি খেলি।’

default-image

নড়াইলে নিজের একটা রাগবি ক্লাব আছে নাদিমের। ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা নাদিমের ক্লাবে অনেক সহায়তা করেন, ‘মাশরাফি ভাইয়ের গ্রামের বাড়ি আর আমার বাড়ি একই জায়গায়। ভাই ক্লাবকে অনেক সহযোগিতা করেন। আমার ক্লাবটা এবার বাংলাদেশ গেমসে খেলেছে।’

জাতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফির মতোই নিজের জেলায় সম্মান পান নাদিম, ‘মাশরাফি ভাইও জাতীয় দলের একসময়ের অধিনায়ক। আমিও রাগবির অধিনায়ক। তবে তাঁর খেলাটা বেশি পরিচিত। সে জন্য বেশি লোকে চেনে তাঁকে। এই খেলা যদি টিভিতে বেশি প্রচারিত হতো, আমাদেরও চিনত। তারপরও ভালো লাগে, শহরের যেকোনো জায়গায়, সরকারি দপ্তরে নিজের পরিচয় দিলেই লোকে সম্মান করে।’

ইউরোপে রাগবি দিয়ে বাংলাদেশকে পরিচিত করতে চান নাদিম, ‘রাগবি সেভেনস বিশ্বকাপ সাধারণত ইউরোপেই বেশি আয়োজিত হয়। ইউরোপে ফুটবল, ক্রিকেট দিয়ে ঢোকা সম্ভব নয়। কিন্তু সুযোগ আছে রাগবি দিয়ে দেশকে পরিচিত করার। যদি সেখানে আমরা ভালো করতে পারি, তাহলে অন্তত তারা চিনবে যে বাংলাদেশ নামের একটা দেশ আছে, যারা রাগবিটাকে প্রচণ্ড ভালোবাসে।’

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন