বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

তা সত্ত্বেও রোমান রেইনস (জো আনোয়াই), ব্রক লেসনার, সেথ রলিন্স (কোলবি লোপেজ), বেকি লিঞ্চ (রেবেকা কুইন), এজে স্টাইলস (অ্যালান নিল জোন্স) দের মতো তারকাদের নিয়ে এখনো রেসলিং জগতের এক নম্বর প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে ডব্লিউডব্লিউই। গত এক বছরে ডব্লিউডব্লিউই-এর কোন কোন রেসলার সবচেয়ে বেশি বেতন পেলেন? বেতনের পরিমাণই বা কত?

একদম নিখুঁত হিসেবটা কখনই সবার সামনে প্রকাশ করে না প্রতিষ্ঠানটি। তাও ফোর্বস, ডেইলি মিরর, স্পোর্টস ইলাস্ট্রেইটড, রেসলিং অবজারভার নিউজলেটারসহ রেসলিংবিষয়ক নির্ভরযোগ্য সাংবাদিকদের তথ্য অনুযায়ী মোটামুটি একটা অনুমান তো করাই যায়। ওয়ার্ল্ড রেসলিং এন্টারটেইনমেন্টের হয়ে নিয়মিত খেলছেন, এমন রেসলারদের মধ্যে এ বছর সবচেয়ে বেশি উপার্জন করলেন কারা? দেখে নেওয়া যাক এক নজরে। যেহেতু নিয়মিত নন, সেহেতু এই তালিকায় দ্য রক (ডোয়াইন জনসন), জন সিনার মতো তারকাদের নাম থাকবে না।

default-image

১০. ডলফ জিগলার (নিকোলাস নেমেথ)
বাৎসরিক আয় - ১৫ লাখ ডলার (প্রায় ১৩ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - স্ম্যাকডাউন ট্যাগ টিম চ্যাম্পিয়ন (১ বার)

গুরুত্বের দিক দিয়ে ব্রক লেসনার, জন সিনা কিংবা রোমান রেইনসদের মতো রেসলারের কাতারে কোনোকালেই ছিলেন না জিগলার। কিন্তু তাঁর সবচেয়ে বড় গুণ, প্রতিষ্ঠানপ্রধান ভিন্স ম্যাকম্যাহান তাঁর কাছ থেকে রেসলার হিসেবে যখন যেমন ভূমিকা প্রত্যাশা করেছেন, জিগলার সেটা মেনেছেন নতমস্তকে। যে কারণে গত কয়েক বছরে সাবেক ওয়ার্ল্ড হেভিওয়েট এই চ্যাম্পিয়ন মূলত নতুন তারকা গড়ার ক্ষেত্রেই বেশি সময় দিচ্ছেন। প্রতিষ্ঠানও তাঁর এই ত্যাগের কথা মাথায় রেখে শার্লট ফ্লেয়ার, রে মিস্টিরিও, এজ কিংবা ববি ল্যাশলিদের চেয়েও বেশি বেতন দিচ্ছে তাঁকে।

default-image

৯. দ্য মিজ (মাইকেল মিজ্যানিন)
বাৎসরিক আয় - ২৫ লাখ ডলার (প্রায় সাড়ে ২১ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - ডব্লিউডব্লিউই চ্যাম্পিয়ন (১ বার)


৪১ বছর বয়সে এসেও দ্য মিজ ডব্লিউডব্লিউই-র কাছে সেই আগের মতোই গুরুত্বপূর্ণ। বছরের শুরুতেই তাঁর একবার ডব্লিউডব্লিউই চ্যাম্পিয়ন হওয়া সেটাই প্রমাণ করে। ইতিহাসের প্রথম রেসলার হিসেবে এর মাধ্যমে দুবার গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন এ বছরে ; অর্থাৎ অন্তত দুবার শীর্ষ চ্যাম্পিয়নশিপ (ডব্লিউডব্লিউই/ওয়ার্ল্ড হেভিওয়েট/ইউনিভার্সাল), মাঝারি সারির চ্যাম্পিয়নশিপ (ইন্টারকন্টিনেন্টাল/ইউনাইটেড স্টেটস) ও দলগত চ্যাম্পিয়নশিপ (র ট্যাগ টিম/স্ম্যাকডাউন ট্যাগ টিম) জিতেছেন এই রেসলার

default-image

৮. কেভিন ওয়েনস (কেভিন স্টিন)
বাৎসরিক আয় - ৩০ লাখ ডলার (প্রায় ২৬ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - স্যামি জেইনের বিপক্ষে রেসলম্যানিয়ায় জয়

এ যুগের রেসলিং ভক্তদের কাছে ড্যানিয়েল ব্রায়ান, কেনি ওমেগা, ফিন ব্যালর, অ্যাডাম কোলদের মতোই জনপ্রিয় কেভিন ওয়েনস। প্রথম তিনজনই এখন খেলেন এইডব্লিউর হয়ে, এই অবস্থায় ওয়েনসও চলে গেলে প্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে লড়াইয়ে বেশ ভালোই ধাক্কা খেত যুগ যুগ ধরে রেসলিং জগতের শীর্ষে অবস্থান করা ডব্লিউডব্লিউই। সেটা হতে দেয়নি তাঁরা। সম্প্রতি তিন বছরের জন্য ডব্লিউডব্লিউই’র সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করেছেন ওয়েনস। জানা গেছে, প্রতি বছর প্রায় ৩০ লাখ ডলার করে কামাবেন ওয়েনস। অন্য রেসলারদের বেতনের সঙ্গে ওয়েনসের বেতন বাড়ার বিষয়টি পর্যালোচনা করে মেলৎজার জানিয়েছেন, এইডব্লিউর হাত থেকে ওয়েনসকে কেড়ে নেওয়ার জন্য আকাশচুম্বী বেতনই প্রস্তাব করেছে ডব্লিউডব্লিউই।

default-image

৭. গোল্ডবার্গ (উইলিয়াম গোল্ডবার্গ)
বাৎসরিক আয় - ৩০ লাখ ডলার (প্রায় ২৬ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - ‘ক্রাউন জুয়েল’ পে-পার-ভিউতে ববি ল্যাশলিকে হারানো


কথায় বলে, মরা হাতির দামও লাখ টাকা। না, গোল্ডবার্গ মরেননি। তাই বলে তাঁর রেসলিং দক্ষতা যে আগের মতো আছে, সেটা তাঁর পাঁড় ভক্তও স্বীকার করবেন না, হয়তো গোল্ডবার্গ নিজেও সেটা দাবি করবেন না! তাই বলে ডব্লিউডব্লিউই-র কাছে গোল্ডবার্গের মূল্য কমেনি একরত্তিও। বছরের প্রধানতম পে-পার-ভিউগুলোতে গোল্ডবার্গের অংশগ্রহণ সে কথাই বলে। কখনো ডব্লিউডব্লিউই চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য ড্রু ম্যাকিন্টায়ারের সঙ্গে লড়ছেন, কখনো ববি ল্যাশলির সঙ্গে। কিংবদন্তিসম এই রেসলারের সঙ্গে ৩০ লাখ ডলারের চুক্তি আছে প্রতিষ্ঠানটির। চুক্তিতে এই শর্তও আছে, বছরে সর্বোচ্চ দুই থেকে তিন ম্যাচে লড়বেন এই তারকা!

default-image

৬. বেকি লিঞ্চ (রেবেকা কুইন)
বাৎসরিক আয় - ৩১ লাখ ডলার (প্রায় ২৭ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - ১৫ মাস পর এসে প্রথম ম্যাচেই স্ম্যাকডাউন নারী চ্যাম্পিয়ন হওয়া, সারভাইভার সিরিজে চ্যাম্পিয়ন বনাম চ্যাম্পিয়ন ম্যাচে শার্লটকে হারানো


বর্তমানে ডব্লিউডব্লিউই এর নারী বিভাগ গড়েই উঠেছে বেকি লিঞ্চ আর শার্লট ফ্লেয়ারকে ঘিরে। এর মধ্যে চ্যাম্পিয়নশিপের হিসেবে শার্লট ঢের এগিয়ে থাকলেও বেতনের খেলায় অবশ্য রিক ফ্লেয়ারের মেয়ের চেয়ে বড় ব্যবধানে এগিয়ে আছেন বেকি লিঞ্চ। শার্লট যেখানে বছরে ১১ লাখ ডলার আয় করছেন, বেকির আয় সেখানে দ্বিগুণেরও বেশি। গত বছরের রেসলম্যানিয়ার পর সন্তানের জন্য ১৫ মাস রিংয়ের বাইরে ছিলেন বেকি, তাও তাঁর আয়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি।

default-image

৫. এজে স্টাইলস (অ্যালান নিল জোন্স)
বাৎসরিক আয় - ৩৫ লাখ ডলার (প্রায় ৩০ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - র ট্যাগ টিম চ্যাম্পিয়ন (১ বার)


এক সময় ডব্লিউডব্লিউইতে না খেলা জনপ্রিয়তম রেসলার ছিলেন এজে স্টাইলস। সে দিন আর নেই। ২০১৫ সালে ডব্লিউডব্লিউতে নাম লেখানোর পর স্টাইলসের প্রাপ্তির খাতাটা ভরেছে ষোলোকলা। সব ধরনের চ্যাম্পিয়নশিপ জিতে গ্র্যান্ড স্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন, চেয়ারম্যান ভিন্স ম্যাকম্যাহানের অন্যতম ভরসার রেসলার এখন তিনি। এবারের রেসলম্যানিয়ায় ওমোসের (জর্ডান ওমোগবেহিন) সঙ্গে একবার দলগত চ্যাম্পিয়নশিপও জিতেছেন।

default-image

৪. সেথ রলিন্স (কোলবি লোপেজ)
বাৎসরিক আয় - ৪০ লাখ ডলার (প্রায় ৩৫ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - সামারস্ল্যাম, স্ম্যাকডাউন ও ক্রাউন জুয়েলে এজের (অ্যাডাম কোপল্যান্ড) সঙ্গে তিনটি দুর্দান্ত ম্যাচ


বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য ডব্লিউডব্লিউই যেসব রেসলারদের ওপর ভরসা করছে, সে তালিকায় সেথ রলিন্সের স্থান ওপরের দিকে। এ বছর চ্যাম্পিয়নশিপের দিক দিয়ে তেমন কিছু না জিতলেও, বারবার প্রমাণ করেছেন কেন তাঁর ওপরে ভিন্স ম্যাকম্যাহান নিশ্চিন্তে ভরসা করতে পারেন। এজের সঙ্গে দুর্দান্ত তিন ম্যাচের প্রোগ্রামটাই যার প্রমাণ। আগামী সপ্তাহে বিগ ই (ইতোরে ইওয়েন), ববি ল্যাশলি ও কেভিন ওয়েনসের বিপক্ষে ডব্লিউডব্লিউই চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য লড়বেন রলিন্স।

default-image

৩. র‍্যান্ডি অরটন (র‍্যান্ডাল কিথ অরটন)
বাৎসরিক আয় - ৪৫ লাখ ডলার (প্রায় ৩৯ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - র ট্যাগ টিম চ্যাম্পিয়ন (১ বার), সবচেয়ে বেশি পে-পার-ভিউ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড, দ্য ফিন্ডের বিপক্ষে রেসলম্যানিয়ায় জয়


ক্যারিয়ারের শুরু থেকে এক প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করার কিছু সুফল থাকেই। আর সে সুফলটাই পাচ্ছেন র‍্যান্ডি অরটন। সেই ২০০৩ সাল থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত একই গতিতে এগিয়ে চলেছেন, এ বছর রিডলের সঙ্গে ক্যারিয়ারের প্রথমবারের মতো র ট্যাগ টিম চ্যাম্পিয়নও হয়েছেন। যেখানে রিডলের পাশে তাঁর বড়ভাইসুলভ ভূমিকা বেশ প্রশংসিত হচ্ছে।

default-image

২. রোমান রেইনস (জো আনোয়াই)
বাৎসরিক আয় - ৫০ লাখ ডলার (প্রায় ৪৩ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - পুরো এক বছর ইউনিভার্সাল চ্যাম্পিয়ন থাকা, সামারস্ল্যামে জন সিনাকে হারানো, রেসলম্যানিয়ায় এজ ও ড্যানিয়েল ব্রায়ানকে হারানো, ক্রাউন জুয়েলে ব্রক লেসনারকে হারানো


বর্তমানে প্রতিষ্ঠানের সবচেয়ে বড় তারকা এবারও নিজের দাম বুঝিয়েছেন। সেই গত বছরের সামারস্ল্যামে যে ইউনিভার্সাল চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছিলেন, এই বছরের পুরোটা সময় ধরে একবারের জন্যও হারাননি। মাঝে জন সিনা, ব্রক লেসনার, এজ, ড্যানিয়েল ব্রায়ানের বিপক্ষে পাওয়া জয়গুলো রোমান রেইনসের জনপ্রিয়তা বাড়িয়েছে তরতর করে। ফলাফল? ৫০ লাখ ডলারের চুক্তি। এই দুর্দান্ত রেইনস খুব শিগগিরই থামবেন, সেটা বলাও যাচ্ছে না!

default-image

১. ব্রক লেসনার
বাৎসরিক আয় - ১ কোটি ২০ লাখ ডলার (প্রায় ১০৩ কোটি টাকা)
পেশাগত দিক দিয়ে ২০২১ সালে অর্জন - রোমান রেইনসের বিপক্ষে সামারস্ল্যামে ম্যাচ খেলেছেন


নিয়মিত খেলা তারকাদের মধ্যে ডব্লিউডব্লিউইয়ের সবচেয়ে বড় তারকা যদি রোমান রেইনস হন, অনিয়মিত খেলা তারকাদের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির সোনার ডিম পাড়া হাঁস নিঃসন্দেহে ব্রক লেসনার। এ বছর এ পর্যন্ত সাকল্যে ম্যাচ খেলেছেন একটা, আর স্ম্যাকডাউনের বেশ কয়েকটা পর্বে দেখা গিয়েছে তাঁকে। ব্যস, তাতেই ১ কোটি ২০ লাখ ডলার পকেটে পুরেছেন এই রেসলার। ২০২০ সালের আগস্টে ডব্লিউডব্লিউইর সঙ্গে চুক্তি শেষ হওয়ার পর এক বছর কার্যত নিজের খামারবাড়িতে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন। ওই সময়টায় ডব্লিউডব্লিউই-র হয়ে চুক্তি নবায়ন করেন, না এইডব্লিউতে নাম লেখান, না আবারও 'আল্টিমেট ফাইটিং চ্যাম্পিয়নশিপ (ইউএফসি)'-এ ফেরত যান, সেটা নিয়ে জল্পনা-কল্পনা ছিলই। শেষমেশ লেসনারকে ধরে রাখার লড়াইয়ে জয়ী হয় ডব্লিউডব্লিউই-ই।

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন