আপনি চাইলে ভিডিও সম্পাদনার জন্য এএমডি প্রসেসরও ব্যবহার করতে পারেন। তবে এ জন্য অবশ্যই এএমডি রাইজেন৫ ৪৬০০জি থেকে শুরু করে রাইজেন৯ ৫৯৫০ এক্স মডেলের প্রসেসর ব্যবহার করতে হবে। প্রসেসরগুলোর দাম ১৫ থেকে ৬২ হাজার টাকা পর্যন্ত।

র‌্যাম

ভিডিও সম্পাদনার জন্য কম্পিউটারে কমপক্ষে ৮ গিগাবাইটের র‌্যাম প্রয়োজন। ভালো হয় যদি ১৬ গিগাবাইট র‌্যামে। আর বাজেট সমস্যা না হলে ৩২ গিগাবাইটের র‌্যামও ব্যবহার করতে পারেন। কিংস্টোন, ট্রানসেন্ড, এইচপি, এআইটিসি, গিগাবাইট, জিস্কিল, টিমসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের তৈরি র‌্যাম বাজারে পাওয়া যায়। ৮ গিগাবাইটের র‌্যামের দাম ৩ থেকে ১৪ হাজার টাকা। ১৬ গিগাবাইট র‌্যামের দাম ৬ থেকে ৩০ হাজার টাকা।

গ্রাফিকস কার্ড

ভিডিও সম্পাদনার জন্য কম্পিউটারে অবশ্যই শক্তিশালী গ্রাফিকস কার্ড ব্যবহার করতে হবে। শুধু তা–ই নয়, থাকতে হবে ফোরকে ভিডিও সম্পাদনা ও একাধিক মনিটর ব্যবহারের সুবিধাও। ব্যবহার করতে পারেন গিগাবাইট জিফোরস জিটি ১০৩০ গ্রাফিকস কার্ড। ২ গিগাবাইট ডিডিআই ৫ মেমোরির এই গ্রাফিকস কার্ডের দাম ৯ হাজার ৮০০ টাকা। এই গ্রাফিকস কার্ড ৪০৯৬ ও ২১৬০ রেজল্যুশন সমর্থন করে। মধ্যম মানের কাজের জন্য ব্যবহার করতে হবে এনভিডিয়া জিটিএক্স ১০৫০ টিআই বা এনভিডিয়া আরটিএক্স ৩০৫০ গ্রাফিকস কার্ড।

পেশাদার ভিডিও সম্পাদনার জন্য এনভিডিয়া জিফোরস ও এএমডি রেডিয়ন চিপসেটের বিভিন্ন মডেলের গ্রাফিকস কার্ড ব্যবহার করতে হবে। কার্ডগুলোর দাম ৬ হাজার থেকে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত।

ধারণক্ষমতা

ভিডিও সম্পাদনার জন্য তুলনামূলক বেশি ধারণক্ষমতার হার্ডডিস্ক প্রয়োজন হয়। যদি ফোরকে ভিডিও নিয়ে কাজ করেন, তবে কমপক্ষে এক টেরাবাইট হার্ডডিস্ক এবং ২৫৬/৫১২ গিগাবাইট এসএসডি ব্যবহার করতে হবে। ভিডিও সম্পাদনার কাজে ব্যবহার করা কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম এসএসডিতে রাখতে হবে। কারণ, সাধারণ হার্ডডিস্কের তুলনায় এসএসডি ১০ গুণ দ্রুত কাজ করায় সহজে ভিডিও সম্পাদনা করা যায়। মডেলভেদে এক টেরাবাইট হার্ডডিস্কের দাম সাড়ে তিন থেকে চার হাজার টাকা। দুই টেরাবাইট হার্ডডিস্কের দাম পাঁচ থেকে সাত হাজার টাকা।

মনিটর

ভিডিও সম্পাদনার জন্য মনিটর বেশ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, ভিডিওর রং সম্পাদনা না করলে ভালো মানের ভিডিও তৈরি করা যায় না। ভালো মানের মনিটর হলেই কেবল রং ঠিকঠাক করা সম্ভব। শুধু তা–ই নয়, বড় পর্দার মনিটরে স্বচ্ছন্দে ভিডিও সম্পাদনা করা যায়। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই পর্দার রেজল্যুশনের বিষয়ে নজর দিতে হবে। এখন এইচডি, ফুলএইচডি, ২কে, ৪কে এবং ৫কে রেজল্যুশনের মনিটর পাওয়া যায়। বাজেট কম হলে ফুলএইচডি রেজল্যুশনের মনিটর ব্যবহার করতে পারেন। পেশাদার কাজের জন্য প্রয়োজন হবে ৪কে বা ৫কে রেজ্যুলেশনের মনিটর। প্রতিষ্ঠানভেদে ২১ থেকে ২২ ইঞ্চি পর্দার মনিটরের দাম কমপক্ষে ১২ হাজার ৯০০ টাকা। ৪৯ ইঞ্চি পর্দার মনিটর কিনতে গুনতে হবে ১ লাখ ৭৭ হাজার টাকা।

একাধিক মনিটর ব্যবহার করতে চাইলে

ভিডিও সম্পাদনার জন্য অনেকেই একসঙ্গে দুটি মনিটর ব্যবহার করেন। হালনাগাদ মডেলের বিভিন্ন গ্রাফিকস কার্ডে একসঙ্গে দুটি মনিটর সংযোগ দেওয়ার সুবিধা রয়েছে। এ ছাড়া মাদারবোর্ডের একাধিক ভিডিও পোর্ট কাজে লাগিয়েও এ সুবিধা পাওয়া যাবে।

একাধিক মনিটর ব্যবহারের জন্য প্রথমেই কম্পিউটারের মনিটরের ফাঁকা জায়গায় মাউসের ডান বাটনে ক্লিক করে Screen resolution অপশনে যেতে হবে। এরপর নতুন যে উইন্ডো আসবে, সেটির ডান পাশের ওপর থাকা Detect-অপশনে ক্লিক করার পর Multiple displays মেনু থেকে Extend these displays নির্বাচন করতে হবে। একটা বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে, কোন মনিটরটি ডানে ও কোনটি বাঁয়ে আছে, তা এ উইন্ডোর ওপরে থাকা মনিটর আইকন থেকে নির্ধারণ করে দিতে হবে।

মাদারবোর্ড

ডেস্কটপ কম্পিউটারের সব যন্ত্রাংশ মাদারবোর্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকে। তাই দ্রুতগতির প্রসেসর সমর্থন করা মাদারবোর্ড ব্যবহার করতে হবে। ভিডিও সম্পাদনার উপযোগী মাদারবোর্ডের দাম ১২ হাজার থেকে ১ লাখ ১৩ হাজার টাকা।

ভিডিও সম্পাদনার সফটওয়্যার

ভিডিও সম্পাদনার কাজে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে অ্যাডোবি প্রিমিয়ার প্রো–সফটওয়্যার বেশ জনপ্রিয়। এ ছাড়া ফ্লিমোরা, সাইবারলিংক পাওয়ার ডাইরেক্ট ও ভেগাস প্রোসহ বিভিন্ন সফটওয়্যার দিয়ে মানসম্পন্ন ভিডিও সম্পাদনা করা যায়।

ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও সফটওয়্যার হচ্ছে ফাইনাল কাট প্রো।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন