‘রিয়্যালিটি ওস’ অপরেটিং সিস্টেমে চলা এ হেডসেটে ব্যবহার করা হবে শক্তিশালী এম ২ প্রসেসর। ফলে থ্রিডি ভিডিও দেখার পাশাপাশি অ্যাপলের মেসেজেস, ফেসটাইম এবং ম্যাপস অ্যাপগুলো স্বচ্ছন্দে ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপলের দাবি, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হেডসেটের তুলনায় এতে সর্বোচ্চ রেজল্যুশনে ছবি বা ভিডিও দেখা যাবে।

ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হেডসেট তৈরির কার্যক্রম শুরু করলেও এখনো নাম ঠিক করেনি অ্যাপল। ধারণা করা হচ্ছে, ‘রিয়্যালিটি প্রো’ বা ‘রিয়্যালিটি ওয়ান’ নামে হেডসেটটি বাজারে আসতে পারে। দুই থেকে তিন হাজার ডলারের মধ্যে কেনা যাবে হেডসেটটি।

আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকে হেডসেটটি বাজারে আনতে পারে অ্যাপল। দুটি ফোরকে প্রযুক্তির মাইক্রো ওএলইডি ডিসপ্লে সুবিধার হেডসেটটি ব্যবহারকারীর চোখের নড়াচড়া শনাক্ত করে ভিডিও প্রদর্শন করবে।