এই প্রতিযোগিতা ছাড়া আইসিপিসি ফাউন্ডেশনের আর কী কী কাজ রয়েেছ?

উইলিয়াম বি পাউচার: এটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। আইসিপিসি ফাউন্ডেশন বিশ্বব্যাপী আইসিপিসি আয়োজন করে। বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে স্পনসর নেওয়া হয়। এর বাইরে অন্য ধরনের প্রতিযোগিতার আয়োজনও করা হয়। যেমন ভারতে শুধু মেয়েদের জন্য আমরা অ্যালগো কুইন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করি। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং চর্চার জন্য অবকাঠামোগত সুবিধা দিয়ে থাকি। সরাসরি পিছিয়ে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটারবিজ্ঞান শিক্ষায় সহায়তা করে থাকি। সমস্যার সমাধান করে দিই, যাতে ভবিষ্যতে তাঁদের ও আমাদের জন্য সুবিধা হয়।

বাংলাদেশের আতিথেয়তা কেমন লাগল?

উইলিয়াম বি পাউচার: খুবই ভালো। চমকপ্রদ অভিজ্ঞতা। এখানকার আতিথেয়তা খারাপ হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নেই। (পাশে ইঙ্গিত করে) আর কামরুল আহসান তো এখন আমার ও আইসিপিসির বড় শক্তি। বাংলাদেশ এত সুন্দর, গোছানো একটি আয়োজন করেছে, আমরা মুগ্ধ। ২০১৬ সালে ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী যখন বাংলাদেশে এ আয়োজন করতে চাইলেন, তখন তাঁর সেই স্বপ্নের প্রতি আমরাও আগ্রহ দেখাই। এরপর নানা প্রক্রিয়ার মধ্যে আজকের দিনটি এল।

আইসিপিসির শুরু থেকেই আপনি যুক্ত…

উইলিয়াম বি পাউচার: ১৯৭৭ সালে আমি একটি দলের কোচ ছিলাম। এরপর ১৯৮০ সাল থেকে আয়োজনে যুক্ত হয়ে পড়ি। সেই থেকে আছি। সব প্রজন্মকেই ত্যাগ স্বীকার করতে হয় পরের প্রজন্মের জন্য। নতুন নতুন সব সমস্যা আসে পৃথিবীতে, যার সমাধান করতে হয়। কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের চর্চা সমস্যার সমাধান করতে দক্ষ করে তোলে। তরুণেরা আইসিপিসির মাধ্যমে দক্ষ হয়ে ওঠে বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য।

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি: ১৯৪৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালাবামায় জন্ম উইলিয়াম বি পাউচারের। বাবা ছিলেন শিক্ষক। উইলিয়ামের প্রথম ১০ বছর কেটেছে ১৪টি জায়গায়। ১৯৭২ সালে উইলিয়াম বি পাউচার কম্পিউটারবিজ্ঞানে শিক্ষকতা শুরু করেন। টেক্সাসের বেলর ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপনা করছেন ৩৯ বছর ধরে। ১৯৮৮ সাল থেকে এখন পর্যন্ত আইসিপিসির নির্বাহী পরিচালক (বিভিন্ন পদবিতে) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ১৯৭৭ থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত এ প্রতিযোগিতার কোচ ও আঞ্চলিক পরিচালক হিসেবেও কাজ করেছেন।