আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মেটার এশিয়া প্রশান্ত অঞ্চলের ইমার্জিং মার্কেটস বিভাগের পরিচালক জর্ডি ফরনিস বলেন, ‘আমরা ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের বিধ্বংসী প্রভাব কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করা বাংলাদেশিদের পাশে রয়েছি। আমরা আশা করছি, আমাদের এ পদক্ষেপ ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের পুনর্বাসনের জন্য স্থানীয় সংগঠনগুলোকে সাহায্য করবে।’

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব কাজী শফিকুল আজম বলেন, ‘মেটার ফেসবুক আমাদের ঘটনাস্থল থেকে তাৎক্ষণিক সংবাদ পেতে সাহায্য করেছে। এতে আমরা মানুষকে সাহায্য করার জন্য সময়মতো কার্যকর সিদ্ধান্তও নিতে পেরেছি। মেটার আর্থিক সহায়তা ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে সাহায্য করবে।’

ব্র্যাকের ডিজাস্টার রিস্ক ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রামের পরিচালক মো. লিয়াকত আলী জানান, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ে বেশ কিছু উপকূলীয় জেলার ঘরবাড়ি, আবাদি জমি ও মাছের ঘেরের ক্ষতি হয়েছে। প্রাকৃতিক এ দুর্যোগ মোকাবিলায় মেটার সহায়তার জন্য ধন্যবাদ। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের জরুরি প্রয়োজন মেটানো সম্ভব হবে।