গবেষকদের দাবি, উইন্ডোজের সাধারণ ব্যবহারকারীদের লক্ষ্য করে এ হামলা চালানো হচ্ছে। ফলে অনেকেই হ্যাকারদের প্রলোভনে পড়ছেন। ভুয়া উইন্ডোজ ১০ এবং অ্যান্টিভাইরাস নামালেই কম্পিউটারে গোপনে ম্যালওয়্যার প্রবেশ করে। ম্যালওয়্যারটি কম্পিউটারে থাকা গুরুত্বপূর্ণ ফাইলগুলোতে কোড যুক্ত করে অকার্যকর করে দেয়। পরে ফাইলগুলো ব্যবহারের জন্য ‘মুক্তিপণ’ দাবি করে হ্যাকাররা।

উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদের বোকা বানাতে একাধিক ভুয়া ওয়েবসাইট তৈরি করে র‍্যানসমওয়্যার হামলা চালাচ্ছে হ্যাকাররা। হ্যাকারদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলেই ব্যবহারকারীদের কম্পিউটারের নিরাপত্তাব্যবস্থা দুর্বল উল্লেখ করে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম বা অ্যান্টিভাইরাস হালনাগাদের অনুরোধ জানানো হয়। আর তাই অপরিচিত প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট থেকে উইন্ডোজ বা অ্যান্টিভাইরাস নামানোর আগে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন গবেষকেরা।

উল্লেখ্য, গত বছরের অক্টোবরে উইন্ডোজ ১১ অপারেটিং সিস্টেম চালু করে মাইক্রোসফট। তবে কম্পিউটারের বিভিন্ন যন্ত্র সমর্থন না করায় অনেকেই হালনাগাদ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে পারেন না। ব্যবহারকারীদের এ সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি বিনা মূল্যে শক্তিশালী অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহারের প্রলোভন দিয়েই মূলত এ হামলা চালাচ্ছে হ্যাকাররা।
সূত্র: জেডডিনেট