চ্যাটজিপিটি
ছবি: রয়টার্স

গত বছরের নভেম্বরে মাইক্রোসফটের অর্থায়নে তৈরি চ্যাটজিপিটি বাজারে আনে মার্কিন প্রতিষ্ঠান ওপেনএআই। এর পর থেকেই চ্যাটজিপিটির কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি নিয়ে বিশ্বজুড়ে চলছে তুমুল আলোচনা। তবে বাজারে আসার কিছুদিনের মধ্যেই কারিগরি ত্রুটির কবলে পড়েছে প্রযুক্তি বিশ্বে হইচই ফেলে দেওয়া চ্যাটজিপিটি। এ ত্রুটির ফলে চাইলেই অন্য ব্যবহারকারীদের চ্যাটজিপিটি ব্যবহারের ইতিহাস ও খুঁটিনাটি তথ্য অন্যরা জানতে পারছেন।

চ্যাটজিপিটির কারিগরি সমস্যার বিষয়টি স্বীকার করে ওপেনএআইর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্যাম অল্টম্যান জানিয়েছেন, ‘ওপেনএআই একটি গুরুতর সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। এ সমস্যার ফলে চ্যাটবটটির কথোপকথনের গোপনীয়তা হুমকির মুখে পড়েছে। ওপেন সোর্স লাইব্রেরিতে ত্রুটির কারণেই মূলত এ সমস্যা হয়েছে। এখন এ ত্রুটি সংশোধন করা হয়েছে। এটি আমরা যাচাইও করেছি। এই কারিগরি সমস্যার কারণে খুব কমসংখ্যক ব্যক্তির চ্যাটজিপিটি ব্যবহারের ইতিহাস অন্যরা জানতে পেরেছেন।’

উল্লেখ্য, চ্যাটজিপিটিতে কারিগরি ত্রুটি দেখা দেওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক ব্যবহারকারী চ্যাটজিপিটিতে কথোপকথনের স্ক্রিনশট প্রকাশ করেন। তাঁরা জানান, এ ধরনের কথোপকথনে তাঁরা কখনোই অংশ নেননি। এরপরই চ্যাটজিপিটির কারিগরি সমস্যার বিষয়টি সবার নজরে আসে। ব্যবহারকারীদের অভিযোগ জানতে পেরে দ্রুত চ্যাটজিপিটির কথোপকথনের ইতিহাস দেখার সুযোগ বন্ধ করে দেয় ওপেনএআই।

গত বছরের নভেম্বরে বাজারে আসা ওপেনএআইর তৈরি চ্যাটজিপিটি যেকোনো বার্তার উত্তর দ্রুত ও নির্ভুলভাবে দিতে পারে। নিজ থেকে বার্তা, গল্প, নিবন্ধ বা কবিতাও লিখে থাকে। নির্ভুল শব্দচয়ন এবং ভাষা ব্যবহার করায় চ্যাটজিপিটির লেখা মানুষের মতোই হয়ে থাকে।

সূত্র: ডেইলি মেইল