বর্তমানে বেশ কয়েকটি নভোযান মঙ্গল গ্রহকে প্রদক্ষিণ করছে এবং ছবি তুলছে। কয়েকটি রোবটযানও বিভিন্ন এলাকার অনুসন্ধানে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বায়ুমণ্ডল ও আগ্নেয়গিরির মতো ভূতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্যগুলো মহাকাশ বা ভূপৃষ্ঠে থাকা রোবটযান দিয়ে পর্যবেক্ষণ সম্ভব নয়। আর তাই এই উড়োজাহাজকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন অজানা তথ্য জানা সম্ভব হবে।

বিজ্ঞানীদের দাবি, অ্যালবাট্রস পাখি যেমন গতিশীল উড্ডয়ন কৌশল ব্যবহার করে এই উড়োজাহাজও তা–ই করবে। উচ্চতার সঙ্গে বাতাসের গতির পরিবর্তনের সুবিধা নেবে এটি। এতে জ্বালানি ছাড়াই উড়োজাহাজটি দীর্ঘ সময় আকাশে ভেসে থাকবে।

উড়োজাহাজটির পাখার দৈর্ঘ্য ১১ ফুট। ইতিমধ্যে কম উচ্চতায় এ উড়োজাহাজের পরীক্ষাও চালিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আগামী আগস্ট মাসে ১৫ হাজার ফুট উচ্চতায় উড়োজাহাজটি পরীক্ষা করে দেখবেন তাঁরা।

সূত্র: বিবিসি

গ্যাজেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন