সফটওয়্যার, প্রোগ্রামিং, ওয়েব ডিজাইন, নেটওয়ার্কিং, সাইবার নিরাপত্তা, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবোটিকসসহ বিভিন্ন বিষয়ে হবে এ প্রতিযোগিতা। এ জন্য দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আইসিটি অলিম্পিয়াড বাংলাদেশের বুথও স্থাপন করা হবে। প্রতিযোগিতার অন্যতম আয়োজক ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মনির হোসেন বলেন, ‘প্রি-স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি শিক্ষাকে জনপ্রিয় করতেই আমাদের এ আয়োজন।’

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের অংশ নেওয়ার সুযোগ দিতে চারটি পর্বে হবে এ প্রতিযোগিতা। প্রথম পর্বে জেলা পর্যায়ে এমসিকিউ পরীক্ষার মাধ্যমে এ প্রতিযোগিতা শুরু হবে। জেলা পর্যায়ে বিজয়ীদের নিয়ে আয়োজন করা হবে বিভাগীয় প্রতিযোগিতা। দেশের সব বিভাগের বিজয়ীদের নিয়ে হবে সেমিফাইনাল ও ফাইনাল। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ৩০ ডিসেম্বর প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিযোগিতার সহযোগী হিসেবে রয়েছে অনলাইন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্রাইট স্কিলস।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন