বেবিটিউবে রয়েছে খেলা, কার্টুন, পড়ালেখা, নাটক, সিনেমা, গেম, গান, ভ্রমণ, ব্লগ, প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন বিষয়ে ছয় শর বেশি ভিডিও। প্রায় চার লাখের বেশিবার দেখা হয়েছে ভিডিওগুলো। গত বছরের এপ্রিলে যাত্রা শুরু করা বেবিটিউব অ্যাপ এরই মধ্যে প্রায় ৩০ হাজারবার ডাউনলোড হয়েছে। ৩১ হাজার নিবন্ধিত ব্যবহারকারীসহ বেবিটিউবের ফেসবুক পেজ, ওয়েবসাইট এবং অ্যাপে প্রায় দুই লাখ মানুষ যুক্ত রয়েছেন।

বেবিটিউবের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী শামীম আশরাফ প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা শিশুদের নিয়ে কাজ করছি অনেক দিন ধরে। মেন্টর মশাই নামে আমাদের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রয়েছে। সেখানে কাজ করার সময় আমরা দেখেছি, শিশুদের প্রযুক্তি আসক্তি অনেক বেশি। এ জন্য তারা অনলাইনে বেশি ভিডিও দেখে। এর মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ও শিখে থাকে তারা। কিন্তু ভালোর পাশাপাশি বেশ কিছু খারাপ দিকও রয়েছে প্রযুক্তির, যা শিশুদের জন্য হুমকি। বিষয়টি বিবেচনা করে শিশুবান্ধব, শিক্ষণীয় এবং মজার ভিডিও শেয়ারিং সাইট তৈরি করেছি।

বেবিটিউব এরই মধ্যে ২৫ লাখ টাকা (প্রায় ২৭.৭৭ হাজার ডলার) অনুদান পেয়েছে। সরকারের তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের এটুআই (অ্যাসপায়ার টু ইনোভেট) থেকেও অনুদান পেয়েছে তারা। গুগল অ্যাপস্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন