আইসিপিসি ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এবং ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক (ইউএপি) আয়োজিত এ প্রতিযোগিতায় ৭০টির বেশি দেশ থেকে ১৩৭টি দল অংশ নিচ্ছে। প্রতিটি দলে একজন কোচ থাকবেন।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের মোট আটটি দল বাংলাদেশ থেকে প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ বলেন, ‘আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে সফলতা অর্জন করেছি। এই সফলতার ওপর নির্ভর করেই ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা টেকসই, জ্ঞাননির্ভর ও সৃজনশীল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে চাই। আইসিপিসির চূড়ান্ত পর্ব আয়োজন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি খাতে আমাদের সক্ষমতা প্রদর্শনের সুযোগ করে দিয়েছে। এর মাধ্যমে আমাদের ভবিষ্যৎ আইসিটি নেতৃত্বের সঙ্গে বর্তমান নেতৃত্বের যোগাযোগ স্থাপনেরও সুযোগ পাওয়া যাবে।’

আইসিপিসি ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড. উইলিয়াম বি পাউচার বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য উন্নত বিশ্ব গড়ে তোলা। এ জন্য আইসিপিসির মতো প্রতিযোগিতাগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব এন এম জিয়াউল আলম, ইউএপির উপাচার্য অধ্যাপক কামরুল আহসান, আইসিপিসির উপনির্বাহী পরিচালক ড. মাইকেল জে ডোনাহু, বিসিসির নির্বাহী পরিচালক রণজিৎসহ অনেকে।
উল্লেখ্য, ৪৪তম আইসিপিসি প্রতিযোগিতায় এশিয়া প্রশান্ত অঞ্চলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)।