চ্যাম্পিয়ন স্টার্টআপগুলো পুরস্কার হিসেবে পেয়েছে ৫ লাখ টাকাসহ ১ লাখ ২৫ হাজার মার্কিন ডলার মূল্যের হুয়াওয়ে ক্লাউড ক্রেডিট সেবা ব্যবহারের সুযোগ। প্রথম ও দ্বিতীয় রানার্সআপ দলগুলো পেয়েছে যথাক্রমে ৩ লাখ ও ১ লাখ টাকা এবং ৮০ হাজার ডলার সমমূল্যের হুয়াওয়ে ক্লাউড ক্রেডিট সেবা। এ ছাড়া প্রতিটি স্টার্টআপের একজন সহপ্রতিষ্ঠাতা দেশের বাইরে সফল স্টার্টআপ প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পাবেন।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ বলেন, বাংলাদেশের তরুণদের অনেক প্রতিভা রয়েছে। এ প্রতিভা বিকাশের সুযোগ দিতে হবে। সরকারের পক্ষ থেকে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে তরুণদের কাজ করার জন্য সব ধরনের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ভিনসেন্ট চ্যাং, হুয়াওয়ে টেকনোলজিস বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী প্যান জুনফেং, স্টার্টআপ বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সামি আহমেদ প্রমুখ।