বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তালেবানের ক্ষমতা দখলের পর পশ্চিমা দেশগুলো আফগানিস্তানে কোটি কোটি ডলারের সহায়তা বন্ধ করে দেয়। একে আফগানিস্তানের জন্য একটি অভূতপূর্ব আর্থিক ধাক্কা হিসেবে বর্ণনা করেছে জাতিসংঘ।

তালেবান অর্থ মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমদ ওয়ালি হকমাল বলেন, ‘গত দুই দশকে প্রথমবারের মতো আমরা এমন একটি বাজেট তৈরি করেছি, যা বিদেশি সাহায্যের ওপর নির্ভরশীল নয়। এটি আমাদের জন্য একটা খুব বড় অর্জন।’

৫৩ দশমিক ৯ বিলিয়ন আফগান মুদ্রার এ বাজেট গত বুধবার অনুমোদন দেওয়া হয়। বাজেটের আওতাকাল ২০২২ সালের প্রথম ত্রৈমাসিক। অনুমোদন দেওয়া বাজেটটি প্রায় সম্পূর্ণরূপে সরকারি প্রতিষ্ঠানে অর্থায়নের জন্য নিবেদিত।

জাতিসংঘের মহাসচিব বলেছেন, লাখ লাখ আফগান ‘মৃত্যুর দ্বার প্রান্তে’। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আফগানিস্তানকে এ বছর ৫০০ কোটি ডলার তহবিল সহায়তার আহ্বান জানিয়ে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি আফগানিস্তানের জব্দ করা সম্পদ অবমুক্ত করে এর ব্যাংকিং ব্যবস্থা শুরু করার কথা বলেন। যাতে দেশটির অর্থনৈতিক ও সামজিক পতন ঠেকানো সম্ভব হয়।

আন্তোনিও গুতেরেস গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘হিমায়িত তাপমাত্রা এবং হিমায়িত (জব্দ) সম্পদ আফগানিস্তানের জনগণের জন্য একটি মারাত্মক সংমিশ্রণ এবং জীবন বাঁচাতে অর্থ ব্যবহার করা থেকে বাধা দেয়, এমন নিয়ম এবং শর্তগুলো এই জরুরি পরিস্থিতিতে স্থগিত করা উচিত।’

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন