বিজ্ঞাপন

জর্জিয়ার সিনেটর জন অসোফের নেতৃত্বে এই সিনেটরদের মধ্যে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ বার্নি স্যান্ডার্সও। শুরু থেকেই তিনি ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলায় ইসরায়েলের নেতানিয়াহু সরকারকে সমর্থন বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছেন।

বিবৃতিদাতাদের মধ্যে ভারমন্টের বার্নি ও মেইনের অ্যাঙ্গাস কিং হচ্ছেন স্বতন্ত্র সিনেটর।

বাকি সবাই ক্ষমতাসীন ডেমোক্রেটিক পার্টির সিনেটর। তাঁরা হলেন উইসকনসিনের ট্যামি বোল্ডউইন, ওহিওর শেরড ব্রাউন, নিউ জার্সির কোরি বুকার, ডেলাওয়ারের টম কারপার, ইলিনয়ের ট্যামি ডাকওর্থ ও ডিক ডারবিন, নিউ মেক্সিকোর মার্টিন হেইনরিচ ও বেন রে লুহান, হাওয়াইয়ের ম্যাজি হিরোনো, ভার্জিনিয়ার টিম কেইন ও মার্ক ওয়ার্নার, মিনেসোটার অ্যামি ক্লোবুচার ও টিনা স্মিথ, ভারমন্টের প্যাট্রিক লেহে, ম্যাসাচুসেটসের ইডি মারকি ও এলিজাবেথ ওয়ারেন, ওরেগনের জেফ মার্কল, কানেটিকাটের ক্রিস মারফি, ওয়াশিংটনের প্যাটি মুরে, রোড আইল্যান্ডের জ্যাক রিড ও শেলডন ওয়াইটহাউস, হাওয়াই ব্রাইন শাৎজ, মোনটানার জন টেস্টার, ম্যারিল্যান্ডের ক্রিস ভ্যান হোলেন এবং জর্জিয়ার রাফায়েল ওয়ারনক।

গাজায় ইসরায়েলি হামলার আজ বুধবার দশম দিন। গত সপ্তাহে পূর্ব জেরুজালেমে আল–আকসা মসজিদে সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে গাজায় টানা ক্ষেপণাস্ত্র ও বিমান হামলা শুরু করে ইসরায়েল। ফিলিস্তিনি সংগঠন হামাসও রকেট ছুড়ে পাল্টা জবাব দিচ্ছে।

গাজার স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত অন্তত ২১৯ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে প্রায় ১০০ জন নারী ও শিশু।

হামলায় আহত হয়েছেন প্রায় দেড় হাজার ফিলিস্তিনি। হামলার জবাবে গাজা থেকে ইসরায়েল লক্ষ্য করে রকেট ছুড়ছে হামাস। ইসরায়েলের ভাষ্য, চলমান সংঘাতে ইসরায়েলের পক্ষে ১২ জন নিহত হয়েছেন। তার মধ্যে দুটি শিশু।

দুই পক্ষের সংঘাত বন্ধে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কূটনৈতিক তৎপরতা চলছে। আন্তর্জাতিক মহল যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানাচ্ছে। তবে ইসরায়েল হামলা অব্যাহত রাখার কথা বলছে।

ইসরায়েলের বিমান হামলা নিয়ে গতকাল একটি বিবৃতি দিয়েছে যুক্তরাজ্যের লন্ডনভিত্তিক বেসরকারি মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। সংগঠনটি বলেছে, ইসরায়েল যেভাবে ফিলিস্তিনের আবাসিক এলাকায় বিমান হামলা চালিয়েছে, তা যুদ্ধাপরাধের সমান। যদিও ইসরায়েল তা অস্বীকার করেছে। দেশটির সামরিক বাহিনী বলেছে, তারা সামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে, যাতে বেসামরিক নাগরিকদের হতাহত হওয়ার ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া যায়।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন