বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংক্ষিপ্ত সংবিধানে সর্বজনীন ভোটাধিকারের কথা বলা থাকলেও ১৯৯৭ সালে চীনের কাছে হস্তান্তরের পর হংকংয়ে গণতন্ত্র নেই। ১ হাজার ৪৬১ জনের সমন্বয়ে গঠিত ‘নির্বাচন কমিটি’ দেশটির নেতা নির্বাচন করে থাকে। এই কমিটির সদস্যসংখ্যা, যা মোটের ওপর শহরের জনসংখ্যার শূন্য দশমিক শূন্য ২ শতাংশ।

আজ গোপন ব্যালটে ভোটদানের পর দেখা যায় ৯৯ শতাংশ ভোটই পড়েছে লির পক্ষে। বিপক্ষে পড়েছে আটটি ভোট। বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে নির্বাচনের ফলকে সর্বসম্মতভাবে স্বাগত জানিয়ে বলা হয়েছে, হংকংয়ের সমাজে লির পক্ষে ব্যাপক জনমত আছে।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অবশ্য এই নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে। হংকংয়ে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রতিনিধি বলেছেন, নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় ‘গণতান্ত্রিক নীতির ব্যত্যয় ও রাজনৈতিক মেরুকরণ ঘটেছে’।

হংকংয়ের নির্বাচন নিয়ে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায়, গতকাল ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বৈদেশিক নীতির প্রধান যোসেফ বোরেলও একই সুরে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন