বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত সপ্তাহে কোভিড-১৯ শনাক্তের দিক থেকে শীর্ষ দেশের তালিকায় যথাক্রমে রয়েছে ব্রাজিল (৩ লাখ ৩৩ হাজার ৩০ জন), ভারত (২ লাখ ৯১ হাজার ৭৮৯ জন), ইন্দোনেশিয়া (২ লাখ ৪৩ হাজার ১১৯ জন), যুক্তরাজ্য (২ লাখ ১০ হাজার ২৭৭ জন) এবং কলম্বিয়া (১ লাখ ৭৪ হাজার ৩২০ জন)। এর মধ্যে ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জগুলোতে শনাক্তের হার খুবই বেশি। এখানে প্রতি ১ লাখ নাগরিকের মধ্যে ২ হাজার ৪৯৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বুলেটিন অনুযায়ী, গত বছরের অক্টোবরে ভারতে শনাক্ত হওয়া দ্রুত সংক্রমণ ক্ষমতাসম্পন্ন ডেলটা ধরন বিশ্বের ১১১টি দেশে চিহ্নিত হয়েছে।

বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যুহার নিম্নগামী, এই সময়ে দেশটিতে শনাক্তের হার ৩ শতাংশ কমেছে। অপরদিকে পূর্ব-ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে এই হার বেড়েছে ২৫ শতাংশ, ইউরোপে ২০ শতাংশ, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ১৬ শতাংশ সংক্রমণ বেড়েছে। পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে শনাক্ত বেড়েছে ১৫ শতাংশ এবং আফ্রিকায় বেড়েছে প্রায় ৫ শতাংশ।

একই সময়ে আফ্রিকায় মৃত্যুহার প্রায় ৫০ শতাংশ বেড়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বেড়েছে ২৬ শতাংশ। তবে আমেরিকায় মৃত্যুহার উল্লেখযোগ্য হারে কমছে, যা শতকরা হিসাবে ১১ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বুলেটিন অনুযায়ী, গত বছরের অক্টোবরে ভারতে শনাক্ত হওয়া দ্রুত সংক্রমণ ক্ষমতাসম্পন্ন ডেলটা ধরন বিশ্বের ১১১টি দেশে চিহ্নিত হয়েছে।

এদিকে বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের ডেলটা ধরন নিয়ে উদ্বেগের মধ্যেই টিকার মিশ্র ডোজ কিংবা বিভিন্ন কোম্পানির উৎপাদিত টিকা অদলবদল না করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন। এ ধরনের সিদ্ধান্ত জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের ওপর ছেড়ে দেওয়া উচিত বলে জানান তিনি।

গত সোমবার এক অনলাইন ব্রিফিংয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী বলেন, এটা কিছুটা বিপজ্জনক প্রবণতা। নাগরিকেরা যদি টিকার দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ডোজ হিসেবে কোন টিকা কখন নেবেন সেই সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে দেশে দেশে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে।

ব্রিফিংয়ে প্রধান বিজ্ঞানী আরও বলেন, এ সম্পর্কিত কোনো সঠিক তথ্য তাঁদের কাছে নেই। ওই দিন রাতেই নিজের বক্তব্য আরও স্পষ্ট করে টুইট করে বলেন, এই বিষয়ে কোনো ব্যক্তির একক সিদ্ধান্ত নেওয়া ঠিক নয়, পর্যাপ্ত তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে জনস্বাস্থ্য সংস্থাগুলো চাইলে এ সিদ্ধান্ত দিতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কৌশলগত পরামর্শক দল গত জুন মাসে জানায়, করোনার টিকার মিশ্র ডোজ নিয়ে এখনো গবেষণা চলছে। এতে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা এবং নিরাপত্তার বিষয়টিও মূল্যায়ন করা হবে।

বিশেষজ্ঞরা জানান, অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ নেওয়ার পর দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে ফাইজারের টিকা নেওয়া যাবে, যদি দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাওয়া না যায়। যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও ফাইজারের টিকার মিশ্রকরণ নিয়ে বর্তমানে একটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। সম্প্রতি এই ট্রায়ালে মডার্না ও নোভাভ্যাক্সকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন