মইসির পলাতক হত্যাকারীদের ধরতে অঙ্গীকার করেছেন পুলিশের এই কর্মকর্তা। তিনি জানান, প্রেসিডেন্টের হত্যাকারীদের ব্যবহার করা অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। বাকি আট খুনিকে ধরতে তদন্ত ও অভিযান জোরদার করা হয়েছে।

বুধবার বন্দুকধারীরা মইসির বাসায় হামলা চালিয়ে তাঁকে হত্যা করে। এ হামলায় তাঁর স্ত্রী মার্টিন মইসি আহত হন। পরে তাঁকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মিয়ামিতে নেওয়া হয়। তিনি শঙ্কামুক্ত আছেন বলে জানা গেছে।

মইসি ২০১৭ সাল থেকে হাইতির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্বপালন করছিলেন। তাঁর পদত্যাগ দাবি করে একাধিকবার বিক্ষোভ হয়েছিল। মইসি নিহত হওয়ায় সরকারের দায়িত্ব নিয়েছেন অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী ক্লদে জোসেফ। তিনি জনসাধারণের চলাচলের ওপর অবরোধ আরোপ করেছেন। এ ছাড়া জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, পরিস্থিতি শান্ত রাখা এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মইসি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ পশ্চিমা বিশ্বের নেতারা। হামলার নিন্দা জানিয়েছেন ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মিশেলও। হাইতির জনগণকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।